কুড়িগ্রামের রাজারহাটে চাঞ্চল্যকর আক্কাস আলীর হত্যার মূল আসামি পুলিশের এসআই (সাময়িক বরখাস্ত) রতন মোস্তাককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার(২০আগষ্ট) রাতে গাইবান্ধা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে রাজারহাট থানা পুলিশ। রতন মোস্তাক গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি থানায় কর্মরত আছেন। তার গ্রামের বাড়ি কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার উমর মজিদ ইউনিয়নের হাজী পাড়ায়।

অভিযোগ ও নিহত আক্কাস আলীর বড় ভাই খোরশেদ আলম জানান, ঈদুল ফেতরের সময় রমজান মাসের তারাবি নামাজে ঈমামের বেতন ৫০টাকা কম দেয়া নিয়ে কথা কাটাকাটির জেরে ঈদুল আজহার দিন সন্ধ্যায় এসআই রতন মোস্তাকসহ তার পরিবারের লোকজন আক্কাস আলী ও ভাগিনা সুমনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করলে তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠালে সেখানে চিকিৎসায় থাকা অবস্থায় আক্কাস মারা যায়। ঘটনার রাতে ১৭ জনকে আসামি করে রাজারহাট থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহতের ভাই খোরশেদ আলম।

এই ঘটনায় এলাকাবাসী ৩জনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করলেও মূল আসামি এসআই রতন মোস্তাকসহ অন্যান্যরা আত্মগোপন করে। এ ঘটনায় রাজারহাটসহ কুড়িগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সংবাদ সম্মেলন করে নিহতের পরিবারসহএলাকাবাসী।

২১আগষ্ট শুক্রবার রাজারহাট থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) রাজু সরকার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, মূল আসামি রতন মোস্তাককে গাইবান্ধা থেকে আটকের পর তাকে কুড়িগ্রাম জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এছাড়াও মামলার পর রতন মোস্তাককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে বলে তিনি নিশ্চিত করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য