গতকাল সন্ধায় পঞ্চগড় সদর উপজেলার সাতমেড়া ইউনিয়নের মুহুরীজোত গ্রামের দক্ষিনে পরিত্যক্ত একটি চা বাগান থেকে সন্ধায় গরু নিয়ে বাড়ী ফেরার পথে কাওছার আলী (২২) নাম এক কৃষক বাঘের হামলার শিকার হয়।

এসময় ঐ কৃষক কোন মতে পালিয়ে গেলেও কাছে থাকা প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা দামের একটি গরুটিকে নিয়ে বাঘটি পালিয়ে যায়। বাঘের আক্রমণে গরুর মৃত্যুর খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে মুহূর্তে আতঙ্কিত হয়ে চাঞ্চল্যতা ছড়িয়ে পড়ে এলাকাজুড়ে।

স্থানীয়রা এলাকাবাসীরা জানান, আতঙ্ক দীর্ঘদিনের, একাধিকবার অভিযোগ করেও কোন সুরাহা পাইনি। আমাদের গ্রামে মাঝে মধ্যে ভারতীয় বাঘ আসে। বিশেষ করে আমাদের গ্রামটি সীমান্তবর্তী ও এলাকাজুড়ে ঘন বন জঙ্গল থাকায় বাঘ সহজে আসে। আমরা তাই সেই বাগান, সেই বাঘের থাবায় আজ একটি গরু খোয়া গেছে।

কৃষকের হাত থেকে ভারতীয় বাঘটি গরুটি কেড়ে নিয়ে বাগানের ভিতর যাওয়ার পরে সেই কৃষক তাৎক্ষণিক নিজেই আতঙ্কে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে স্থানীয়দের নিয়ে গরুটি উদ্ধারের চেষ্টা করেন কিন্তু এর আগেই বাঘের আক্রমণে গরুটির মৃত্যু হয়ে যায়। স্থানীয়দের দাবি দ্রুত এই বাঘের আতঙ্ক থেকে পরিত্রান চাই।

এদিকে খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পৌঁছান সামাজিক বন বিভাগের কর্মীরা, পঞ্চগড় সদর থানা পুলিশ, স্থানীয় সমাজসেবক জনপ্রতিনিধি ও আশপাশের হাজার হাজার গ্রামবাসী। তাই সন্ধা নামার পর থেকে স্থানীয়দের সহযোগীতা নিয়ে বন বিভাগ বাঘের আক্রমণ থেকে বাঁচতে গ্রামে গ্রামে মাইকিং শুরু করেছে।

পঞ্চগড় সদর উপজেলার বন বিভাগের সদর বিড অফিসার সুলতান মাহমুদ জানান, জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে বন বিভাগ কর্তৃক ঐ গ্রামের আশপাশ সহ গ্রামে গ্রামে জরুরী মাইকিং চলছে। আমরা সকলকে সচেতন থাকার পরামর্শ দিচ্ছি। আর বাঘটিকে আটক করার ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। গত বৃহস্পতিবার দিনাজপুর বন বিভাগ থেকে বাঘ শিকারী আনা হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য