হংকং-এ চীনের চালুকৃত বিতর্কিত নিরাপত্তা আইনের আওতায় গ্রেফতার হলেন মিডিয়া টাইকুন বা মিডিয়া মোগল জিমি লাই। বিদেশি শক্তির সঙ্গে হাত মেলানোর অভিযোগে স্থানীয় সময় সোমবার (১০ আগস্ট) সকালে তাকে গ্রেফতার করা হয়। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

১৫০ বছর ঔপনিবেশিক শাসনে থাকার পর চুক্তির মেয়াদ শেষে ১৯৯৭ সালের ১ জুলাই হংকং-কে চীনের কাছে ফেরত দেয় যুক্তরাজ্য। তখন থেকে অঞ্চলটি ‘এক দেশ, দুই নীতি’র আওতায় স্বায়ত্তশাসনের মর্যাদা ভোগ করে আসছে। বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চল হিসেবে বিবেচিত হংকংকে ২০৪৭ সাল পর্যন্ত স্বায়ত্তশাসনের নিশ্চয়তা দিয়েছে চীন।

তবে গত বছর অঞ্চলটিতে ব্যাপক বিক্ষোভের মুখে সেখানে বিতর্কিত হংকং নিরাপত্তা আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নেয় বেইজিং। ৩০ জুন সর্বসম্মতভাবে এ সংক্রান্ত বিলে পার্লামেন্টে অনুমোদনের পর সেদিনই এতে স্বাক্ষর করেন চীনা প্রেসিডেন্ট। এই আইনে রাষ্ট্রদ্রোহ, বিধ্বংসী ও সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ অথবা বিদেশি রাষ্ট্রের সঙ্গে হাত মিলিয়ে চলা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। পুলিশের কাছে ঢালাও ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। কোনও ওয়ারেন্ট ছাড়া তারা তল্লাশি করতে পারবে, সামাজিক মাধ্যম থেকে যে কোনও মেসেজ ডিলিট করতে পারবে এবং গ্রেফতার করতে পারবে।

জিমি লাই-এর মালিকানাধীন অ্যাপল ডেইলি এর প্রতিবেদনে বলা হয়, সোমবার সকাল সাতটার দিকে ১০ পুলিশ সদস্য ৭২ বছর বয়সী লাই এর বাড়িতে প্রবেশ করেন। এরপর তার সদর দফতরে তল্লাশি চালানো হয় এবং তা আবার সরাসরি সম্প্রচারও করা হয়। জিমি লাই-এর নেক্সট মিডিয়া গ্রুপের জ্যেষ্ঠ নির্বাহী মার্ক সাইমন জানিয়েছেন, বিদেশি শক্তির সঙ্গে হাত মেলানোর অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

জাতীয় নিরাপত্তা আইনে এখন পর্যন্ত যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে, তার মধ্যে লাই হলেন সবচেয়ে হাই প্রোফাইল। পুলিশ জানিয়েছে, জাতীয় নিরাপত্তা আইনে সাতজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বয়স ৩৯ থেকে ৭২ বছরের মধ্যে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য