কুড়িগ্রামের রাজারহাটে ছিনাই এলাকায় মধ্যরাতে বাবা-মাকে আহত করে নবম শ্রেণির এক ছাত্রী(১৪)কে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের ৫দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে না পারায় ৩০জুলাই বৃহষ্পতিবার কুড়িগ্রাম-রংপুর সড়কের ছিনাই গেট এলাকায় আবারো মানবন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী। তারা দ্রুততম সময়ে এই চাঞ্চল্যকর ধর্ষণের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার ও শাস্তি দাবী করেন।

মানববন্ধনে বক্তারা দুর্বৃত্তদের গ্রেপ্তার করা না হলে আবারো সড়ক অবরোধের ঘোষণা দেন। এ সময় বক্তব্য রাখেন জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান বাবু, ছিনাই ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সাদেকুল হক নুরু, ছিনাই মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার আহাম্মদ আলী, সহকারী অধ্যাপক নিজামুল ইসলাম নিজাম প্রমুখ। এর আগে একই দাবীতে গত মঙ্গলবার এলাকাবাসী মানববন্ধন ও সড়ক অবরোধ করে।

উল্লেখ্য, গত রোববার রাত দেড়টার দিকে রাজারহাট উপজেলার ছিনাই ইউনিয়নের মহিধর খন্ডক্ষেত্র গ্রামে দুর্বৃত্তরা নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। দুর্বৃত্তের দলটি ওই গ্রামের রেজা শাহ পাহলভির (৪৮) বাড়িতে ঢুকে প্রথমে তার মাথায় আঘাত করে। পরে তার স্ত্রী পারভীন বেগমকে (৩৮) মারপিট করে তার স্বর্ণের চেইন ও গলারহারসহ স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নেয়।

এরপর তাদের নবম শ্রেণি পড়-য়া মেয়েকে তুলে নিয়ে যায় এবং পাশর্^বর্তি এলজিইডি খামারের পাশে ধর্ষণ করে। আহত বাবা মা এখন কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে। রাজারহাট থানার ওসি রাজু আহমেদ জানিয়েছেন, তদন্তের স্বার্থে ৪ জনকে জিঙ্গাসাবাদ করে তাদের স্বজনদের জিম্মায় দেয়া হয়েছে।

কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান জানিয়েছেন, অপরাধীদের ধরতে পুলিশ তৎপর রয়েছে। দ্রুততম সময়ে তাদের সনাক্ত করে আইনের আওতায় নিয়ে আনার দাবী জানানো হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য