সারাবিশ্বে জুড়ে করোনা আতঙ্ক , তার সাথে যোগ হয়েছে চিকুনগুনিয়া। বর্ষা আসতেই ডেঙ্গুর সাথে ব্যাপক হারে ছড়াচ্ছে ভাইরাল ফিভার। এ বার যুক্ত হয়েছে চিকুনগুনিয়াও। চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, ইতিমধ্যেই চিকুনগুনিয়ার রোগী আসা শুরু হয়েছে।

বর্ষাকালে ডেঙ্গু ছাড়াও চিকনগুনিয়ায় প্রকোপ থেকে সাবধান থাকতে হবে। সতর্ক হতে হবে মশার বংশবৃদ্ধি নিয়ে। সর্তকতাই কমিয়ে দিতে পারে ডেঙ্গু ও চিকনগুনিয়ার প্রকোপ এমনটাই বলেছেন চিকিৎসকরা।

ভাইরাস-ব্যাকটেরিয়া গবেষকেরা ও বর্তমান জ্বরের চরিত্র ও তার কারণ নিয়ে ধোঁয়াশায় রয়েছেন। জ্বর এক দিনের বেশি থাকলেই রক্ত পরীক্ষার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। কোনটা ডেঙ্গু, কোনটা চিকুনগুনিয়া শনাক্ত করা সম্ভব একমাত্র রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমেই। বয়স্ক বা শিশুদের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হবে বেশি।

চিকুনগুনিয়ার ক্ষেত্রে আগে অনেক বেশি জোর দেওয়া হত উপসর্গের ক্ষেত্রে। কিন্তু প্যারাসিটামলের ব্যবহারের পরই চরিত্রগুলো আগের থেকে পাল্টে গেছে । চিকুনগুনিয়ার ক্ষেত্রে জ্বরের আলাদা কোনও চরিত্র ছিল না। কিন্তু সারা গায়ে অসম্ভব ব্যথার সঙ্গে জ্বর একটা অন্যতম উপসর্গ ছিল। তবে এখন অল্প জ্বর ও গিঁটে ব্যথা হলেও চিকুনগুনিয়া হতে পারে। তাই ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই রক্ত পরীক্ষা করিয়ে নিতে হবে। কোনও ঝুঁকি নেওয়া যাবে না। চিকুনগুনিয়ার ক্ষেত্রে অ্যান্টিজেন পরীক্ষা করতে হয় না, এ ক্ষেত্রে শুধু অ্যান্টিবডি পরীক্ষাই যথেষ্ট।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য