ওয়াশিংটন-বেইজিং ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যেই এবার চীনের হয়ে যু্ক্তরাষ্ট্রে গুপ্তচরবৃত্তির কথা স্বীকার করেছেন সিঙ্গাপুরের এক নাগরিক।

জুন উই ইয়োর বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক পরামর্শক পরিচয় ব্যবহার করে চীনা গোয়েন্দা সংস্থার জন্য তথ্য সংগ্রহের অভিযোগ আনা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন মার্কিন কর্মকর্তারা।

চীনের সামরিক বাহিনীর সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ গোপন করার দায়ে দেশটির এক গবেষককেও যুক্তরাষ্ট্র গ্রেপ্তার করেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

হংকং, দক্ষিণ চীন সাগর এবং প্রাণঘাতী নতুন করোনাভাইরাসের উৎস নিয়ে মুখোমুখি বেইজিং ও ওয়াশিংটনের মধ্যে গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগকে ঘিরে কথার লড়াই চলছিল।

এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্র হিউস্টনের চীনা কনস্যুলেট শুক্রবারের মধ্যে বন্ধের নির্দেশ দেয়।

তার পাল্টায় বেইজিংও পরে সিচুয়ান প্রদেশের চাংতুতে অবস্থিত মার্কিন কনস্যুলেট বন্ধের নির্দেশ দেয়।

হিউস্টনে কনস্যুলেট বন্ধে নির্দেশ দেয়ার কারণ হিসেবে বেইজিংয়ের বিরুদ্ধে ‘মেধাস্বত্ব’ চুরির অভিযোগ আনেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও।

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন ওয়াশিংটনের অভিযোগকে উড়িয়ে দিয়ে একে ‘চীনবিরোধী মিথ্যাচার’ অ্যাখ্যা দেন।

বিবিসি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র টেক্সাসের হিউস্টনে অবস্থিত চীন কনস্যুলেট বন্ধে যে ৭২ ঘণ্টা সময় বেঁধে দিয়েছিল, শুক্রবার স্থানীয় সময় বিকাল ৪টায় ওই সময় শেষ হয়ে যাওয়ার পরপরই মার্কিন কর্মকর্তারা কনস্যুলেট ভবন ও এর চত্বরের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেন।

ভবনটির প্রবেশ পথে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কূটনৈতিক নিরাপত্তা ব্যুরোর কর্মীদের পাহারা দিতেও দেখা গেছে।

একইদিন মার্কিন বিচার বিভাগের এক বিবৃতিতে বলা হয়, সিঙ্গাপুরের নাগরিক ইয়ো ২০১৫ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে চীন সরকারের অবৈধ এজেন্ট হিসেবে কাজ করার কথা স্বীকার করেছেন।

২০১৯ সালে ইয়োকে গ্রেপ্তারের পর তার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক পরামর্শক পরিচয় ব্যবহার করে চীনা গোয়েন্দা সংস্থার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের মূল্যবান ও গোপনীয় তথ্য সংগ্রহের অভিযোগ আনা হয়েছিল।

শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা চীনের যে গবেষককে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছেন তার নাম জুয়ান তাং বলে বিবিসি জানিয়েছে।

চলতি সপ্তাহে ওয়াশিংটন যে চার চীনা নাগরিকের বিরুদ্ধে পিপলস লিবারেশন আর্মির সঙ্গে সম্পৃক্ততার তথ্য গোপন করে যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা নেওয়ার অভিযোগ করেছে, জুয়ান তার অন্যতম।

৩৭ বছর বয়সী এ নারী ছাড়া বাকিদের আগেই গ্রেপ্তার করা হয়।

সান ফ্রান্সিসকোতে অবস্থিত চীনা কনস্যুলেট জুয়ানকে লুকিয়ে রেখেছে বলে কয়েকদিন ধরেই মার্কিন কর্মকর্তারা অভিযোগ করে আসছিলেন।

শেষ পর্যন্ত কীভাবে এ চীনা গবেষক ধরা পড়লেন, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

জুয়ান ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া ডেভিসের রেডিয়েশন অঙ্কোলজি বিভাগে ভিজিটিং রিসার্চার হিসেবে যোগ দিলেও ‍জুনেই তিনি চাকরি ছেড়ে দেন বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য