দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এক মানসিক ভারসাম্যহীন নারী (৫০) ফুটফুটে ১টি কণ্যা সন্তান প্রসব করেছেন। ২০ জুলাই দিবাগত রাত ১১ টার দিকে সে ওই সন্তান প্রসব করেন। তবে ওই সন্তানের জন্মদাতা কে তা নিয়ে ধুম্র জালের সৃষ্টি হয়েছে। নারী নিজেও বলতে পারছেন না যে ওই সন্তানের পিতা কে!

জানা যায়, উপজেলার বিনোদনগর ইউনিয়নের গাজীপুর গ্রামে তার পিতার বাড়ী। ওই ইউনিয়নের কামারপাড়া গ্রামে তার বিয়েও হয়েছিল। সেখানে তার ২ কণ্যা সন্তানও রয়েছে যারা বর্তমানে স্বামীর ঘর করছে। প্রায় ৪ বছর পূর্বে তাকে তার স্বামী তালাক প্রদান করেছেন।

এরপর মাথা খারাপের কারনে অনেক দিন ধরেই তিনি নবাবগঞ্জ উপজেলা সদরে ঘোরাফেরা করেন। রাত হলে সদরেরই একজনের উঠানের মাঝে থাকত। এরই মধ্যে ২০ জুলাই সোমবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে তাকে নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

রাত ১১ টার দিকে তিনি সন্তান প্রসব করেন। কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ সাদিয়া কাশেম সাফা জানান মা ও শিশু সুস্থ আছেন। তার প্রসবের কাহিনীর বিষয়টি নবাবগঞ্জ থানা কে অবহিত করা হয়েছে।

নবাবগঞ্জ থানার ওসি অশোক কুমার চৌহান জানান মেয়েটিকে অনেক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। বলতেই পারছেন না যে তার ওই সন্তানের পিতা আসলে কে? আজ মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ নাজমুন নাহার শিশুটিকে দেখতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান।

তিনি জানান যেহেতু শিশুটির অভিভাবক রয়েছে সেক্ষেত্রে করার কিছু নাই। অভিভাবকের মানষিক অবস্থা অস্বাভাবিক। তাই শিশুটির নিরাপত্তা নিশ্চিত করে অভিভাবককে দেয়ার চিন্তা করা হচ্ছে। উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার শুভ্র প্রকাশ চক্রবর্তী জানালেন শিশুটির অভিভাবক রয়েছে।

অভিভাবক থাকলে সেখানে তাদের করার কিছু থাকে না। অভিভাবক অপারগতা প্রকাশ করলে তখন তাকে অনাথ ঘোষনা করে তারা বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নিতে পারবেন। যাই হোক শিশুটি যেন ভাল থাকে এটাই সবার নিকট কাম্য।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য