কুড়িগ্রামের রাজারহাটে বেশ কয়েকদিন ধরে প্রচন্ড বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে পানি বৃদ্ধি পেয়ে তিস্তানদীতে প্রবল স্রােতের সৃষ্টি হয়। কয়েকদিন ধরেই রাজারহাট উপজেলার ঘড়িয়ালডাঙ্গা বিদ্যানন্দ ও নাজিমখান ইউনিয়নের নদীর তীরবর্তী ভাঙ্গন দেখা দেয়। ভাঙ্গন কবলিত এলাকায় পানি উন্নয়নর বোর্ড(পাউবো) ও এলাকবাসীরা বালুভর্তি জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙ্গন রোধ করার চেষ্টা চালায়। এরই মধ্যে গত ২০জুলাই সন্ধ্যায় ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নের বুড়িরহাট এলাকায় ক্রস বাঁধটিতে ধ্বস সৃষ্টি হয়। প্রায় আধাঘন্টার মধ্যে পুরো বাঁধটি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়। এসময় এলাকাবাসীরা জিও ব্যাগ ফেলে রক্ষার চেষ্টা করে বিফল হয়। শত শত দর্শক ভাঙ্গন দৃশ্য অবলোকন করে। একই সময়ে বিদ্যানন্দ গাবুর হেলান ক্রসবাঁধটিও বিলীন হয়ে যায়। ক্রম বাঁধ দু’টি বিলীন হয়ে যাওয়ায় নদীর তীরবর্তী মানুষ ভাঙ্গন আতংকে দিন কাটাচ্ছে। এ ঘটনায় ২১জুলাই মঙ্গলবার কুড়িগ্রাম-২আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব পনির উদ্দিন, কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরে তাসনিম ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন। এব্যাপারে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম জানান, ক্রস বাঁধ দু’টিতে ভাঙ্গনরোধে জিও ব্যাগ ফেলা পাইলিং হচ্ছে। পানি কমে গেলে ক্রসবাঁধ দু’টি সংষ্কার করা হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য