ঠাকুরগাঁওয়ে এক ভুয়া চিকিৎসককে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। শনিবার বিকাল ৪টার দিকে জগন্নাথপুর ইউনিয়নে বড় খোচাবাড়ি বাজারে ওই ভুয়া চিকিৎসককে এ সাজা দেওয়া হয় বলে জানান ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন।

সাজাপ্রাপ্ত সোহাগ ইসলাম বাবু (২০) জগন্নাথপুর ইউনিয়নের কিসমত দৌলতপুর গ্রামের প্রয়াত খলিলুর রহমানের ছেলে।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, দেশে করোনাভাইরাস শুরু হওয়ার আগে সোহাগ ইসলাম বাবু দিনাজপুরে এক চিকিৎসকের সহকারী হিসেবে কাজ করতেন। করোনা শুরু হওয়ার পর সোহাগ নিজেকে ডায়বেটিস, মেডিসিন ও শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দাবি করে সদর উপজেলার বড় খোচাবাড়ি হাটে চেম্বার খুলে মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছিলেন।

এভাবেই তিন মাস ধরে নিজেকে চিকিৎসক দাবি করে মানুষদের সাথে প্রতারণা করে আসছিলেন সোহাগ। গোপনে খবর পেয়ে শনিবার বিকালে ঠাকুরগাঁও সদর থানা পুলিশের সহায়তায় জগন্নাথপুর-বেগুনবাড়ি সড়কে বড় খোচাবাড়ি হাটে চিকিৎসকের চেম্বারে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় চেম্বার থেকে সোহাগ ইসলাম বাবুকে আটক করা হয় বলে জানান তিনি।

আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ভিজিটিং কার্ডে ও চেম্বারের সাইবোর্ডে ডিপ্লোমা চিকিৎসক (ডিএমএ ও এলএমএএফপি) ও মেডিসিন, ডায়াবেটিস ও শিশু বিশেষজ্ঞ লেখা থাকলেও সোহাগ কোনো সনদ দেখাতে পারেননি।

তাৎক্ষণিকভাবে ভ্রাম্যমাণ আদালত গঠন করলে সোহাগ তার দোষ স্বীকার করেন। ঠাকুরগাঁওয়ে এ ভুয়া চিকিৎসককে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য