দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলায় জমে উঠেছে মাছ ধরার সামগ্রী খোলসুনের (ভোরং) বিক্রী।

বর্ষায় নতুন পানি আসার সঙ্গে সঙ্গে খাল বিল ডোবা ও নি¤œাঞ্চল পানির নিচে। শত শত পুকুর ও মাছের ঘের পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় সব জায়গায় পাওয়া যাচ্ছে মাছ। এ সময় গ্রাম অঞ্চলের স্থানীয়ভাবে তৈরি বিভিন্ন জাল ও বাঁশের তৈরি ভোরং দিয়ে ছোট মাছ ধরার ধুম পড়েছে। বর্ষার মৌসুমে সবচেয়ে বেশি ব্যবহার হচ্ছে বাঁশের তৈরি ভোরং নামের এই যন্ত্র।

এলাকা ভেদে এই যন্ত্রটিকে খোলসুন/দারকি বলা হয়। আর বই-পুস্তকের ভাষায় বিটে বলা হয়। পানির মধ্যে এই যন্ত্রটি রেখে দেওয়া হয়। চলাচলের সময় ছোট ছোট মাছগুলো বাঁশের তৈরি এই ফাঁদের ভিতরে আটকা পড়ে। এটি গ্রামাঞ্চলের মাছ ধরার খুব জনপ্রিয় একটি মাধ্যম।

বৃহস্পতিবার উপজেলার সবচেয়ে বড় হাট গোলাপগঞ্জ হাটে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিটি ভোরং আকার ভেদে ৩০০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। ঠাকুরগাঁও জেলার গড়েয়াহাট সহ বিভিন্ন হাট থেকে ভোরং বিক্রি করতে নিয়ে এসেছেন। এছাড়া আবার অনেকে নিজে হাতে ভোরং তৈরি করে বিক্রি করছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য