দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে কিশোরীর গর্ভপাত ঘটানোর অভিযোগে নবাবগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে।

কিশোরী নিজেই বাদী হয়ে বুধবার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষন ও অবৈধভাবে গর্ভপাত ঘটানোর অভিযোগ আনয়ন করে একটি মামলা দায়ের করেছে। পুলিশ ওই মামলার অভিযুক্ত ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে।

মামলার সূত্রে জানা যায় উপজেলার ভাদুরিয়া ইউনিয়নের বাজিতপুর(মধ্যপাড়া) গ্রামের শাহ আলমের কিশোরী কন্যা(১৬) একই গ্রামের পূর্ব পাড়ার মৃত আঃ রশিদের ছেলে সাইফুল ইসলাম(৫০) কে সর্ম্পকে দাদা বলে ডাকে।

দাদা সাইফুল ইসলাম গত ৩ মার্চ রাতে মোবাইলে চার্জ দেয়ার কথা বলে কৌশলে তার ঘরে প্রবেশ করে তাকে ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর পূর্বক ধর্ষন করে।

এরপর ২৯ মার্চ রাতেও একই কৌশলে তাকে ধর্ষন করে। ইতোমধ্যে সে ৩ মাসের অন্তঃস্বত্তা হয়ে পড়ে। বিষয়টি সে তার মাকে জানায়। মা তার বাবাকে জানায়।

এ নিয়ে ধর্ষক সাইফুল ইসলামকে বলা হলে সে দেন দরবার ও ভয়ভীতি দেখিয়ে গত ৫ জুলাই রংপুরের একটি ক্লিনিকে নিয়ে কিশোরীর গর্ভপাত ঘটায়।

এরপর শালিসের নামে কতিপয় ব্যক্তি তার নানির নিকট থেকে চিকিৎসার কাগজপত্র নিয়ে নষ্ট করে ফেলে। অবশেষে সে থানায় মামলা দায়ের করে।

পুলিশ জানায় মামলায় অভিযুক্ত ধর্ষক সাইফুল ইসলামকে গ্রেফতার পূর্বক বুধবার আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। একই দিন কিশোরীকে ডাকাক্তী পরিক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য