থাইল্যান্ডে বিদেশিদের প্রবেশের ক্ষেত্রে কড়া বিধি-নিষেধ জারি করেছে দেশটির সরকার। যেসব বিদেশি কূটনীতিক ও তাদের পরিবারের সদস্য নিজ বাড়িতে স্বেচ্ছা আইসোলেশনে থাকলেই হতো, তাদেরকে এখন সরকারি তত্ত্বাবধানে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সম্প্রতি বিদেশ থেকে আগত দুইজনের শরীরে করোনা শনাক্ত হওয়ার পর মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) এ ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

থাইল্যান্ডে জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ৩,২২৭ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৫৮ জনের। সম্প্রতি স্থানীয়ভাবে নতুন সংক্রমণের ঘটনা ছাড়াই ৫০ দিন অতিবাহিত করেতে সক্ষম হয় থাইল্যান্ড। গত সপ্তাহে পূর্বাঞ্চলীয় রায়ং প্রদেশে মিসরীয় সামরিক বিমানের এক ক্রু এবং ব্যাংককে নিয়োজিত সুদানি কূটনীতিকের পরিবারের ৯ বছর বয়সী একজনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। থাইল্যান্ডে প্রবেশের ক্ষেত্রে তাদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন পালনের বাধ্যবাধকতা থেকে ছাড় দেওয়া হয়েছিল।

ধারণা করা হচ্ছে, ওই দুই ব্যক্তির কাছ থেকে আরও বহু মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। এরইমধ্যে তাদের সংস্পর্শে আসা ৪ শতাধিক মানুষকে রাখা হয়েছে আইসোলেশনে।

মঙ্গলবার ব্যাংককে দুইটি স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। রায়ং শহরে বন্ধ হয়েছে অন্তত ১০টি স্কুল। করোনা আক্রান্ত সে মিসরীয় বিমান ক্রু গত বুধবার রায়ং শহবে যান এবং একটি মলে বেশ খানিকক্ষণ সময় কাটিয়েছিলেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য