দক্ষিণ চীন সাগরের বেশিরভাগ অংশের সম্পদের উপর বেইজিংয়ের দাবিকে ‘পুরোপুরি বেআইনি’ বলে অ্যাখ্যা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

সোমবার এক বিবৃতিতে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেছেন, বিতর্কিত জলসীমার নিয়ন্ত্রণ পেতে বেইজিং যে `উস্কানিমূলক প্রচারণা ও তর্জন-গর্জন’ করছে, তা ঠিক হচ্ছে না।

চীন তাৎক্ষণিকভাবে যুক্তরাষ্ট্রের এ অবস্থানের প্রতিবাদ জানিয়েছে। বলেছে, দক্ষিণ চীন সাগর নিয়ে আমেরিকানরা ‘উদ্দেশ্যমূলকভাবে তথ্য ও আন্তর্জাতিক আইনের বিকৃতি ঘটাচ্ছে’।

বিবিসি জানিয়েছে, বিতর্কিত এ জলসীমার কৃত্রিম দ্বীপে চীন সামরিক স্থাপনা নির্মাণ করলেও সেখানে ব্রুনেই, মালয়েশিয়া, ফিলিপিন্স, তাইওয়ান ও ভিয়েতনামেরও মালিকানার দাবি আছে।

দক্ষিণ চীন সাগরের বিভিন্ন অংশের মালিকানা নিয়ে ওই অঞ্চলের দেশগুলোর বিরোধ শতাব্দি পুরনো। তবে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বেইজিংয়ের আগ্রাসী ভূমিকায় অঞ্চলটিতে উত্তেজনা বেড়েছে।

সাগরের ‘নাইন-ড্যাশ লাইন’ নামে পরিচিত এলাকার মালিকানা দাবির পাশাপাশি চীন সেখানে কৃত্রিম দ্বীপ নির্মাণ, টহল ও সামরিক উপস্থিতির পরিমাণ বাড়িয়েই চলেছে।

বিতর্কিত এ সামুদ্রিক এলাকায় বিপুল পরিমাণ প্রাকৃতিক সম্পদ আছে। জলসীমাটি মৎস শিকার ও বাণিজ্যিক জলযান চলাচলের ক্ষেত্রেও বেশ গুরুত্বপূর্ণ।

মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের উৎস, হংকং ও শিংজিয়ানে চীনের ‘নিপীড়ন’, বাণিজ্য চুক্তি ও তাইওয়ান নিয়ে বেইজিং-ওয়াশিংটনের টানাপোড়েনের মধ্যেই সোমবার মার্কিন প্রশাসন দক্ষিণ চীন সাগর নিয়ে তাদের দৃঢ় অবস্থান ব্যক্ত করল।

পম্পেওর বিবৃতিতে স্পার্টলি দ্বীপপুঞ্জের আশপাশে ১২ নাটিকাল মাইলের বাইরের অংশে বিশেষ করে ভিয়েতনামের কাছে ভ্যানগার্ড ব্যাংক, মালয়েশিয়ার কাছে লুকোনিয়া শোলস, ব্রুনেইয়ের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল ও ইন্দোনেশিয়ার কাছে নাতুনা বেসার ও এর আশপাশের জলসীমায় চীনের সব দাবি খারিজ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট।

“আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, দক্ষিণ চীন সাগরের বেশিরভাগ অংশের সম্পদের উপর বেইজিংয়ের দাবি এবং সেসব এলাকার নিয়ন্ত্রণ পেতে তারা যে ধরনের তর্জন-গর্জন ও প্রচারণা চালাচ্ছে, তা একেবারেই বেআইনি। দক্ষিণ চীন সাগরকে বেইজিং তার সামুদ্রিক সাম্রাজ্য বানাতে চাইলেও বিশ্ব তা বরদাশত করবে না,” বলেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

প্রত্যুত্তরে টুইটারে দেওয়া বিবৃতিতে ওয়াশিংটন ডিসিতে অবস্থিত চীন দূতাবাস বলেছে, “যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় উদ্দেশ্যমূলকভাবে তথ্য এবং জাতিসংঘের সমুদ্র আইনসহ আন্তর্জাতিক আইনের বিকৃতি ঘটাচ্ছে।”

যুক্তরাষ্ট্র দক্ষিণ চীন সাগরের পরিস্থিতিকে ‘বাড়িয়ে বলছে’ এবং চীনের সঙ্গে উপকূলবর্তী বিভিন্ন দেশের বিরোধের বীজ বপনের চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ করেছে তারা।

“বেইজিংয়ের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা পুরোপুরি অন্যায্য। চীন এটি দৃঢ়ভাবে প্রত্যাখ্যান করেছে,” বিবৃতিতে বলেছে যুক্তরাষ্ট্রের চীন দূতাবাস।

চীন তাদের শিনজিয়াং প্রদেশের উইঘুর ও অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানবাধিকার লংঘন করছে অভিযোগ করে ওয়াশিংটন সম্প্রতি চীনা কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিসি) এক পলিটব্যুরো সদস্যসহ চার কর্মকর্তার উপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

এর পাল্টায় চীনও পরে দুই মার্কিন সিনেটরসহ যুক্তরাষ্ট্রের চারজনের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

জুলাইয়ের শুরুতে প্যারাসেল দ্বীপপুঞ্জের আশপাশে চীনের মহড়ার সময়ই যুক্তরাষ্ট্র দক্ষিণ চীন সাগরে দুটি বিমানবাহী রণতরী ও চারটি যুদ্ধ জাহাজ মোতায়েন করে সেগুলো দিয়ে মহড়া চালিয়েছে।

সম্প্রতি জাপানের বার্ষিক প্রতিরক্ষা মূল্যায়ণে দক্ষিণ চীন সাগরে বেইজিংয়ের নৌ-তৎপরতাকে ‘গভীর উদ্বেগজনক’ অ্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে। চীন দক্ষিণ ও পূর্ব চীন সাগরের স্থিতিশীল অবস্থা পরিবর্তনের চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ করেছে তারা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য