পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় দশম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় রুবেল হোসেন (২২) নামে এক যুবককে আসামি করে তেঁতুলিয়া মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে পুলিশ এখন পর্যন্ত আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি। বর্তমানে ওই কিশোরী পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার দেবনগর ইউনিয়নের হেংগাডোবা গ্রামের রফিজুল ইসলামের ছেলে মো. রুবেল দশম শ্রেণির ওই শিক্ষার্থীকে দীর্ঘদিন ধরেই উত্যক্ত করে আসছিল। বিদ্যালয়ে যাতায়াতের পথে কুপ্রস্তাব দিতো। বিষয়টি ওই স্কুলছাত্রী তার বাবা-মাকে জানালে তারা রুবেলের পরিবারের কাছে অভিযোগ করে।

এতে রুবেল ক্ষিপ্ত হয়ে আরো বেপরোয়া হয়। গত শনিবার রাতে ওই কিশোরী ঘর থেকে বের হলে পূর্ব থেকে ওৎপেতে থাকা রুবেল তার মুখ চেপে ধরে বাড়ির পাশের বাঁশবাগানে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে ওই কিশোরী অজ্ঞান হয়ে পড়লে তাকে তার বাড়ির টয়লেটে বিবস্ত্র অবস্থায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। মাঝরাতে ওই এলাকায় ওই যুবককে দেখতে পেয়ে স্থানীয়দের সন্দেহ হয়।

স্থানীয়রা তাকে আটক করার চেষ্টা করে কিন্তু সে পালিয়ে যায়। এদিকে ওই কিশোরীকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি শুরু করে পরিবারের লোকজন। ওই বাঁশঝাড়ে রুবেলের এবং ওই কিশোরীর জুতা, পরনের কাপড় খুঁজে পায়। পরদিন সকালে পরিবারের লোকজন টয়লেটে গিয়ে বিবস্ত্র অবস্থায় তাকে খুঁজে পেয়ে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় ওই কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে ধর্ষণের অভিযোগে রবিবার (৫জুলাই) তেঁতুলিয়া মডেল থানায় রুবেলকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তেঁতুলিয়া থানার উপ পরিদর্শক আমজাদ আলী মন্ডল জানান, ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে আমলি আদালতের বিচারকের নিকট জবানবন্দির জন্য হাজির করা হবে। আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

তেঁতুলিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু সাঈদ চৌধুরী মামলা দায়েরের কথা স্বীকার করে জানান, ওই কিশোরীর ডাক্তারি পরীক্ষার প্রস্তুতি এবং আসামিকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য