মার্কিন সেনাদের হত্যা করার বিনিময়ে তালেবান রাশিয়ার কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ করছে বলে মার্কিন দৈনিক নিউ ইয়র্ক টাইমস যে খবর দিয়েছে এবার সে সম্পর্কে কোনো কিছু জানার কথা অস্বীকার করলেন খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বলেছেন, এ সম্পর্কে কোনো গোয়েন্দা সূত্র এখন পর্যন্ত তাকে কিছু জানায়নি।

অথচ শুক্রবার নিউ ইয়র্ক টাইমস অজ্ঞাত মার্কিন কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে দাবি করে, মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা ব্যাপক তদন্তের পর এ বিষয়ে একমত হয়েছেন যে, আফগানিস্তানের তালেবান আমেরিকা বা ইউরোপীয় কোনো দেশের সেনাদের হত্যা করতে পারলে রাশিয়ার কাছ থেকে পুরস্কার হিসেবে ব্যাপক অর্থ গ্রহণ করে।

এরকম সফল হামলার ব্যাপারে তালেবান ও রাশিয়ার মধ্যে সমঝোতা হয়েছে বলে দাবি করে দৈনিকটি। নিউ ইয়র্ক টাইমস জানায়, মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা গত মার্চ মাসে বিষয়টি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে অবহিত করেছেন।

কিন্তু ট্রাম্প গতকাল (রোববার) এক টুইটার বার্তায় বলেছেন, তাকে এই গোয়েন্দা তথ্য সম্পর্কে কখনোই কিছু জানানো হয়নি। এমনকি তার ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বা চিফ অব স্টাফ মার্কমিডৌসকেও এ বিষয়ে অবহিত করা হয়নি বলে টুইটার বার্তায় দাবি করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

এমনকি হোয়াইট হাউজ এবং আমেরিকার গোয়েন্দা সংস্থা ন্যাশনাল ইন্টেলিজেন্স’র পরিচালকও নিউ ইয়র্ক টাইমসের এ খবর অস্বীকার করেছেন। রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এর আগেই এ খবর অস্বীকার করেছে। ওয়াশিংটনের রুশ দূতাবাস ‘ভুয়া খবর’ প্রচার করার জন্য নিউ ইয়র্ক টাইমসকে অভিযুক্ত করেছে।

আফগানিস্তানের তালেবানও পশ্চিমা সেনা হত্যা করে রাশিয়ার কাছ থেকে পুরস্কার পাওয়ার খবর প্রত্যাখ্যান করেছে। তালেবান মুখপাত্র জবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেছেন, কোনো বহিঃশক্তি বা বিদেশি গোয়েন্দা সংস্থার অর্থে তালেবানের যুদ্ধ চলে না। তিনি রোববার এক টুইটার বার্তায় লিখেছেন, তালেবান গত ১৯ বছর ধরে আগ্রাসী শক্তিগুলোর বিরুদ্ধে যে লড়াই করছে তা কোনো বিদেশি শক্তির ওপর নির্ভর করে করেনি এবং হামলার লক্ষ্যবস্তু নির্ধারণের ক্ষেত্রেও কারো সাহায্যের প্রয়োজন তালেবানের নেই। – পার্সটুডে

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য