দিনাজপুর সংবাদাতাঃ কয়েকদিন ধরে থেমে থেমে ভারী বৃষ্টিপাতের কারনে দিনাজপুরের নদীগুলোে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে, দিনাজপুরের তিনটি নদীর পানি বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই করছে। । বৃহস্পতিবার ভোর ৬টা থেকে দুপুর ৩টা পর্যন্ত দিনাজপুরে ১৬ মিলিমিটির বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে বলে জানান দিনাজপুর আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।

ইতিমধ্যে নদী গুলোর আশেপাশের নিম্নাঞ্জল প্লাবিত হয়েছে। আজ কাহারোল উপজেলার প্লাবিত বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শণ করেছেন স্থানীয় (বীরগঞ্জ-কাহারোল) সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল। এসময় তিনি বিভিন্ন জায়গায় আশ্রিতাদের সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেন।

পানি বাড়তে থাকলে রাতের মধ্যে বিপৎসীমা অতিক্রম করবে বলে আশঙ্কা পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) কর্মকর্তাদের। পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে বন্যা মোকাবিলায় খোলা হয়েছে জেলা প্রশাসনের কট্রোল রুম।

দিনাজপুর পাউবোর পানি বিজ্ঞান উপ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. ইলিয়াস হোসেন বলেন, বিকাল ৩টা পর্যন্ত জেলার প্রধান তিনটি নদীর পানি বিপৎসীমার কাছাকাছি অবস্থান করছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে রাতের মধ্যে নদীগুলোর পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করবে। দিনাজপুর শহরের পাশ দিয়ে প্রবাহিত পুনর্ভবা নদীর ৩৩ দশমিক ৫০০ মিটার বিপদসীমার বিপরীতে বর্তমানে পানির স্তর রয়েছে ৩০ দশমিক ১১ মিটার, আত্রাই নদীর ৩৯ দশমিক ৬৫০ মিটারের বিপৎসীমার বিপরীতে বর্তমানে ৩৮ দশমিক ৫৫মিটার ও ইছামতি নদীর ২৯ দশমিক ৯৫০ বিপৎসীমার বিপরীতে ২৬ দশমিক ৯৭ মিটারে অবস্থান করছে। বিকাল ৩টার পরও দিনাজপুরে বারী বর্ষণ হয়েছে। এতে নদীর পারি আরো বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই করছে। অন্যান্য সকল নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে।

দিনাজপুর শহরের  পুনর্ভবা নদীর পানি বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই করছে আশে পাশের গ্রাম গুলোর নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ডুবে গেছে ফসলের ক্ষেত। এ ছাড়াও দিনাজপুরের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। আগাম তৈরি করা আমন ধানেরবীজতলা তলিয়ে গেছে।

আগামী ৩ তিন এই বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকবে বলে জানান দিনাজপুর আবহাওয়া অফিস।

ছবি ক্রেডিটঃ সৌরভ মহন্ত, দিনাজপুর গ্রুপ

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য