এবার নরেন্দ্র মোদিকে একহাত নিলেন দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, নিজেকে ঢাকতে মিথ্যা বলছেন মোদি।

সেইসঙ্গে মনমোহন সিং বলেন, মোদির উচিৎ নিজের শব্দচয়ন নিয়ে সতর্ক হওয়া। চীনের অবস্থান নিয়ে কোনও বিভ্রান্তি ছড়ানো প্রধানমন্ত্রীর উচিত নয়।

কংগ্রেস এই নেতা আরও বলেন, এই মুহুর্তে, আমরা ঐতিহাসিক মোড়ের মুখে দাঁড়িয়ে আছি। আমাদের সরকারের সিদ্ধান্ত ও পদক্ষেপই ঠিক করে দেবে যে ভবিষ্যত প্রজন্ম আমাদের সম্বন্ধে কী উপলব্ধি করবে। যারা আমাদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন তাদেরই একান্তভাবে এই দায়িত্বের ভার বহন করতে হবে এবং আমাদের গণতন্ত্রে এই দায়িত্বটি থাকে প্রধানমন্ত্রীর দফতরের উপর।

তাই প্রধানমন্ত্রীকে অবশ্যই তিনি কী বলছেন এবং আমাদের জাতির সুরক্ষা নিশ্চিত করতে যে যে ঘোষণাগুলি করছেন তার প্রভাব সম্পর্কে সবসময় সচেতন থাকতে হবে। বলেন ভারতের সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী।

মনমোহনের এমন বক্তব্যেই চটেছেন বিজেপি সভাপতি জে পি নাড্ডা। ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেছেন, মনমোহন এমন দলের সদস্য যারা ৪৩ হাজার কিলোমিটার এলাকা চীনকে দিয়ে দিয়েছে।

জে পি নাড্ডা-র অভিযোগ, কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট সরকারের আমলে কৌশলগতভাবে পরাজিত হয়েছে ভারত। সে সময় কোনও লড়াই ছাড়াই হেরেছে দিল্লি।

বিজেপি সভাপতির দাবি, ভারতের সেনাবাহিনীকে বারবার হেয় করার চেষ্টা করেছে কংগ্রেস।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার সর্বদলীয় বৈঠকের পর নরেন্দ্র মোদি বলেন, ভারতীয় ভূ-খণ্ডে কোনও চীনের আগ্রাসন হয়নি। দেশের সীমান্ত কেউ লঙ্ঘন করতে পারেনি। কোনও পোস্টও দখল করেনি চীন।

মোদির এ মন্তব্যের পরই তা নিয়ে শুরু হয়ে যায় বিতর্ক। প্রশ্ন ওঠে, কেউ যদি সীমান্ত পেরিয়ে না-ই এসে থাকে, তবে ২০ জন ভারতীয় জওয়ানের মৃত্যু হল কীভাবে?

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য