দক্ষিণ ইংল্যান্ডের রেডিং শহরের একটি পার্কে তিন ব্যক্তিকে হত্যা করেছেন সন্দেহে গ্রেপ্তার ব্যক্তিকে ব্রিটিশ গোয়েন্দা সংস্থা এমআইফাইভ আগে থেকেই চিনত বলে জানা গেছে।

নিরাপত্তা সূত্রগুলো বিবিসিকে বলেছে, খাইরি সাদাল্লাহ নামের এই ব্যক্তি লিবিয়া থেকে এসেছিল এবং গত বছর সে এমআইফাইভের নজরে আসে।

শনিবারের ছুরি হামলার পরপরই রেডিং শহরের বাসিন্দা সাদাল্লাহকে গ্রেপ্তার করা হয়। এই সন্ত্রাসী হামলায় আর কারও জড়িত থাকার কোনো আলামত না পাওয়ায় তারা আর কারও খোঁজ করছে না বলে জানিয়েছে পুলিশ।

কাউন্টার টেররিজম পুলিশিং সাউথ ইস্ট (সিটিএসপিই) জানিয়েছে, রেডিংয়ের ২৫ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি যাকে প্রথমে খুনী সন্দেহে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল তাকে সন্ত্রাসবাদী আইন ২০০০ এর ৪১ ধারায় ফের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সম্ভাব্য সন্ত্রসাবাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার উদ্দেশ্যে এই সন্দেহভাজন বিদেশ যাওয়ার আকাঙ্ক্ষা পোষণ করে, এমন তথ্য পাওয়ার পর গত বছর সে ব্রিটিশ গোয়েন্দা বিভাগের নজরদারিতে এসেছিল বলে নিরাপত্তা সূত্রগুলো বিবিসিকে জানিয়েছে।

ওই তথ্যের সূত্র ধরে আরও অধিক তদন্তের পর সত্যিকার কোনো হুমকি বা তাৎক্ষণিক ঝুঁকি শনাক্ত না হওয়ায় এই ব্যক্তির নামে কোনো মামলা দায়ের করা হয়নি, আর এই কারণে তখন তার বিরুদ্ধে তদন্তও আর এগোয়নি।

সিটিএসপিইর প্রধান ক্যাথ বার্নস জানান, এবার গ্রেপ্তারের পর তদন্ত দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে।

তিনি জানান, ফরবারি পার্কে হামলার খবর পাওয়ার পাঁচ মিনিটের মধ্যে সন্দেহভাজনকে গ্রেপ্তার করা হয়, দ্রুত অনেক পুলিশ কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে পৌঁছে যান।

সন্দেহভাজনের বন্ধু কিরান ভার্নন বিবিসিকে জানান, সাদাল্লাহকে তার ‘স্বাভাবিক, খাঁটি লোক’ বলে মনে হয়েছে এবং তারা একসঙ্গে গাঁজা সেবন করতেন।

“তাকে আমর বা তোমার মতোই মনে হয়েছে। যখনই আমাদের দেখা হত আমরা হুইস্কি পান করা নিয়ে অথবা মনের ওপর বিভিন্ন ধরনের গাঁজার পৃথক প্রভাব নিয়ে আলোচনা করতাম। আমাদের মধ্যে এ ধরনের আলোচনাই বেশি হতো,” বলেন তিনি।

প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, সন্দেহভাজন একবার তার উপরের তলার জানালা দিয়ে একটি টেলিভিশন বাইরে ছুড়ে ফেলেছিল এবং একজন মানসিক স্বাস্থ্য কর্মী নিয়মিত তাকে দেখে যেত।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য