আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা কমিটির এক সভা শনিবার জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। কমিটির সভাপতি জাতীয় সংসদের হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি এমপির সভাপতিত্বে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সিভিল সার্জন ডাঃ এবিএম আবু হানিফ, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফরহাদ আব্দুল্যাহ হারুন বাবলু, সাধারণ সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিক, হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক মাহফুজার রহমান, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহ সারোয়ার কবীর, গাইবান্ধা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর সাবু, জেলা বিএমএ সভাপতি মতিয়ার রহমান, এসকেএস’র মো. আশরাফ আলী, ডাঃ মাজেদুর রহমান সুজন প্রমুখ।

সভায় হাসপাতাল পরিচালিত আনসার ভিডিপি কেন্দ্রে করোনা ভাইরাসে আক্রান- রোগীদের জন্য প্রতিষ্ঠিত আইসোলেশন সেন্টারে করোনা ভাইরাসে আক্রান- রোগীদের চিকিৎসা ব্যবস’া, খাবারের মান উন্নয়ন, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা ও বিশু পানীয় জল সরবরাহ নিশ্চিত করার উপর সভায় সর্বাধিক গুরুত্ব রোপ করা হয়।

এছাড়া সভায় গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালের রাস্তার উন্নয়ন, ড্রেইনেজ ও পয়ঃনিস্কাশন ব্যবস’ার উন্নয়ন, পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন বজায় রাখা, জরুরী ভিত্তিতে চিকিৎসকদের শূন্যপদ পূরণ, রোগীদের চিকিৎসার মান উন্নয়ন, হাসপাতালের মূল্যবান ডিজিটাল এক্সরে মেশিনটি কেন দ্রুত নষ্ট হয়ে গেল তা তদন- করে দেখার উপর গুরুত্বারোপ করা হয়।

তদুপরি হাসপাতালের জরুরী এবং প্রয়োজনীয় ওষুধ ও আনুসাঙ্গিক সরঞ্জামাদি ক্রয়ের জন্য গত অর্থ বছরে সরকার কর্তৃক ১২ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হলেও তা যথাসময়ে ক্রয় না করায় সমুদয় টাকা ফেরত চলে যায়। এই ১২ কোটি টাকা ফেরত যাওয়া প্রসঙ্গসহ চলতি অর্থ বছরের বরাদ্দকৃত টাকায় হাসপাতালের ওষুধ এবং সরঞ্জামাদি ক্রয় সম্পর্কে উত্থাপিত নানা অভিযোগ প্রসঙ্গে সভায় বিস-ারিত আলোচনা হয়।

আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে কেন গত অর্থ বছরে টাকা ফেরত গেলো, এ বছর ওষুধ ও সরঞ্জামাদি ক্রয় সম্পর্কে যথাযথ নিয়ম-নীতিমালা অনুসরণ করা হয়েছে কিনা তা জরুরী ভিত্তিতে তদন- করে রিপোর্ট প্রদান করার জন্য সভাপতি হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি এমপি নির্দেশ প্রদান করেন এবং ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন- কমিটি গঠন করে দেন।

এই তদন- কমিটির সভাপতি গাইবান্ধা সিভিল সার্জন, সদস্য সচিব গাইবান্ধা জেলা প্রশাসকের প্রতিনিধি এবং সদস্যরা হলেন জেলা বিএমএ সভাপতি, গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী ও এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য