প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন নিউজিল্যান্ডের সীমান্ত দেখভালের জন্য বুধবার সামরিক বাহিনীকে দায়িত্ব দিয়েছেন। দেশটিতে কোয়ারেন্টিন কার্যকরে তালগোল পাকিয়ে ফেলায় তিনি এমন পদক্ষেপ নিলেন।

কোয়ারেন্টিন কার্যকরে ঘাটতি থাকায় দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের এ দেশটিতে ফের কোভিড-১৯ ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়।

আরডার্ন সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমার পর্যবেক্ষণ হচ্ছে যে আমাদের কড়াকড়ি আরোপ করা প্রয়োজন। আমাদের আস্থা প্রয়োজন। আমাদের শৃঙ্খলা বজায় রাখা প্রয়োজন। আর এগুলো সামরিক বাহিনী রক্ষা করতে ও বজায় রাখতে পারে।’

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, নিউজিল্যান্ডে ২৫ দিন পর গত মঙ্গলবার কোভিড-১৯ ভাইরাসে নতুন করে দু’জন আক্রান্ত হয়েছেন। করোনা আক্রান্ত এ দুই নারী সম্প্রতি যুক্তরাজ্য থেকে নিউজিল্যান্ডে আসেন।

মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে আজ নিউজিল্যান্ডে নতুন করে দু’জনের কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। এতে আরো বলা হয়, তারা দু’জনই সম্প্রতি যুক্তরাজ্য সফর করেন। এদের একজনের করোনার হালকা উপসর্গ থাকা সত্ত্বেও কোয়ারেন্টিনে না থাকার অনুমতি দেয়া হয়।

কেবলমাত্র নিউজিল্যান্ডের নাগরিক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের দেশে ফিরে আসতে দেশটির সীমান্ত খুলে দেয়া হয়। এক্ষেত্রে বিশেষ বিবেচনায় ব্যবসায়ীদের জন্যও এ সুযোগ রাখা হয়। তবে দেশের বাইরে থেকে আসা সকলকেই বাধ্যতামূলকভাবে দুই সপ্তাহ আলাদা থাকার কথা বলা হয়েছে।

দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশ নিউজিল্যান্ড গত সপ্তাহে তাদের দেশকে করোনামুক্ত ঘোষণা করে। ৫০ লাখ জনসংখ্যার এ দেশে মাত্র ২২ জন কোভিড-১৯ ভাইরাসে প্রাণ হারায়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য