আজিজুল ইসলাম বারী , লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলায় এক সঙ্গে তিন পুত্র সন্তান জন্ম দেওয়া সেই রোকসানা বেগমের বাড়িতে খোঁজ- খবর নিতে ছুটে গেলেন পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান। রোকসানা বেগম ওই উপজেলার বুড়িমারী ইউনিয়নের বামনদল গ্রামের জনাব আলীর স্ত্রী।

অসহায় পরিবারে একসঙ্গে তিন সন্তানের জন্মের খবর পেয়ে রবিবার (১৪ জুন) সন্ধ্যার দিকে ওই মা ও সন্তানদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য পুষ্টিকর খাদ্য সহায়তা ও নগদ অর্থ নিয়ে রোকসানার বাড়িতে হাজির হন পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবু সাঈদ নেওয়াজ নিশাত, পাটগ্রাম উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) উত্তম কুমার নন্দী, বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আব্দুস সালাম প্রমুখ।

জানাগেছে, গত সোমবার (৮ জুন) বিকালে রংপুরে আদর্শ জেনারেল ক্লিনিকে রোকসানা বেগম তিন পুত্র সন্তান প্রসব করেন। এক সঙ্গে তিন সন্তানের জন্মের খবর ছড়িয়ে পড়লে শত শত নারী-পুরুষ ওই বাড়িতে ভিড় করেন।

এ বিষয়ে রোকসানা বেগমের অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এক সঙ্গে তিনটি বাচ্চা জন্ম দেওয়া সত্যিই সৌভাগ্যের। আপনারা সবাই আমার সন্তানদের জন্য দোয়া করবেন তারা যেন সুস্থ থাকে।’

এ বিষয়ে বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সাঈদ নেওয়াজ নিশাত বলেন, ‘তিন সন্তান জন্ম দেওয়া পরিবারটি আর্থিক ভাবে অসচ্ছল হওয়ায় আমি তাদের রংপুরে ক্লিনিকে যাতায়াত খরচ ও নগদ অর্থ দিয়েছি।
প্রসূতি মায়ের খাদ্যের ব্যবস্থা করেছি।’

এ বিষয়ে পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মশিউর রহমান জানান, ’আমি গণমাধ্যমে মাধ্যমে জানতে পারি বুড়িমারীতে একটি অসহায় পরিবারে একসঙ্গে তিন সন্তানের জন্ম হয়েছে। খবর পেয়ে নবজাতক ও প্রসূতি মাকে দেখতে গিয়েছি। মায়ের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য পুষ্টিকর খাদ্য সহায়তা ও নগদ অর্থ দেওয়া হয়েছে। তাদের পরবর্তীতে কোনো প্রয়োজন হলে আমার সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।’

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য