যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যে ক্রিস্টোফার কলম্বাসের ভাস্কর্যে আগুন দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা। স্থানীয় সময় ৯ জুন মঙ্গলবার রাতে ভার্জিনিয়ার রিচমন্ড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের পর ভাস্কর্যটি লেকের পানিতে ফেলে দেয় তারা।

১৯২৭ সালের ডিসেম্বরে ভাস্কর্যটি কলম্বাসের প্রতি উৎসর্গ করা হয়েছিল। দেশটির দক্ষিণাঞ্চলে এটিই ছিল তার স্মরণে প্রথম কোনও স্থাপত্য।

প্রায় দুই ঘণ্টা ধরে শহরের বায়ার্ড পার্ক এলাকায় বিক্ষোভের পর আমেরিকা মহাদেশের আবিষ্কারক হিসেবে পরিচিত কলম্বাসের ভাস্কর্যটি উপড়ে ফেলে আন্দোলনকারীরা। স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ৮টার দিকে দড়ি দিয়ে বেদী থেকে এটি উপড়ে ফেলতে সমর্থ হয় তারা। এ সময় সেখানে স্প্রে পেইন্ট করে ‘কলম্বাস গণহত্যার প্রতিনিধিত্ব করে’ লিখে দেয় তারা। এরপরই ভাস্কর্যটিকে পুড়িয়ে লেকের পানিতে ফেলে দেয় তারা।

এ ঘটনার সময় ঘটনাস্থলে পুলিশের উপস্থিতি ছিল না। তবে কলম্বাসের মূর্তি অপসারণের পর সেখানকার আকাশে পুলিশের হেলিকপ্টার চক্কর দিতে দেখা যায়।

এ বিষয়ে শহরের পার্ক দফতরের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাৎক্ষণিকভাবে তাদের পক্ষ থেকে কোনও বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মঙ্গলবার রাতের এ ঘটনার আগে এদিন সকালে বায়ার্ড পার্কে জড়ো হওয়া বিক্ষুব্ধ আন্দোলনকারীদের সঙ্গে কথা বলেন অ্যাক্টিভিস্ট চেলসি হিগস-ওয়াইজসহ অন্যরা। তারা বিক্ষোভকারীদের কাছে আমেরিকার আদিবাসী এবং আফ্রিকান-আমেরিকানদের লড়াইয়ের ইতিহাস তুলে ধরেন।

নিজের বক্তব্যে অ্যাক্টিভিস্ট চেলসি হিগস-ওয়াইজ বলেন, ‘যেখানে এর (বর্ণবাদ) সূচনা হয়েছে সেখানেই আমাদের শুরু করতে হবে।’

উল্লেখ্য, ১৪৯২ সালের ১২ অক্টোবর আমেরিকা আবিষ্কার করেন ইতালীয় নাগরিক ক্রিস্টোফার কলম্বাস। স্পেনের তৎকালীন রানির অর্থানুকূল্যে এ ভূখণ্ডে অবতরণ করেন তিনি। তবে আমেরিকার আবিষ্কারক হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে কলম্বাসের ভাবমূর্তি ক্রমেই ম্রিয়মান হয়ে পড়ছে। সমালোচকদের অনেকেই তাকে আমেরিকায় ইউরোপীয় উপনিবেশবাদের হোতা এবং স্থানীয় আদিবাসীদের ওপর গণহত্যার অগ্রদূত হিসেবে আখ্যায়িত করে থাকেন। সূত্র: আল জাজিরা, এপি, ইউএস নিউজ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য