বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা এক হাজার ছাড়িয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে ৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হলো ১০১২ জনের।

এই ভাইরাসে গত তিনদিন ধরে প্রতিদিনই ৪০ জনের ওপর মৃত্যু হচ্ছে। মৃতদের বেশিরভাগই ঢাকা শহর ও বিভাগের বাসিন্দা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত বুলেটিনে অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা জানিয়েছেন, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৩,১৯০ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৭৪ ৮৬৫ জন।

বাংলাদেশ জুন মাসের শুরু থেকেই প্রতিদিন দুই হাজারের বেশি কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হচ্ছে। মঙ্গলবার শনাক্ত হয়েছিল ৩,১৭১ জন। শনাক্তের হার ১৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ।

অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা জানান, ১৫,৯৬৫টি নমুনা পরীক্ষা করে এই রোগীদের শনাক্ত করা হয়।

এই সময়ে সুস্থ হয়েছেন ৫৬৩ জন। এ নিয়ে দেশটিতে মোট সুস্থ হয়েছেন ১৫, ৮৯৯ জন। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ২১ দশমিক ২৪ শতাংশ।

জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটি এন্ড মেডিসিনের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে বিশ্বের ১৮৮টি দেশ বা অঞ্চলের ৭২ লক্ষ ৪১ হাজার ৭৯জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ পর্যন্ত বিশ্বে মৃত্যু হয়েছে ৪ লক্ষ ১১ হাজার ২৯২ জনের।

অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা জানান, যারা মারা গেছেন, তাদের মধ্যে পুরুষ ৩৩ জন এবং নারী চার জন। বয়সের হিসাবে:

১১ থেকে ২০ বছর: ১ জন

৩১ থেকে ৪০ বছর: ৩ জন

৪১ থেকে ৫০ বছর: ৫ জন

৫১ থেকে ৬০ বছর: ১০ জন

৬১ থেকে ৭০ বছর: ১০ জন

৭১ থেকে ৮০ বছর: ৭ জন

৮১ থেকে ৯০ বছর: ১ জন

তাদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের বাসিন্দা ২৫ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ৭ জন, রাজশাহী বিভাগে ১ জন, সিলেট বিভাগে ১ জন, বরিশাল বিভাগে ২ জন ও ময়মনসিংহ বিভাগে ১জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

হাসপাতালে মারা গেছেন ২৫ জন এবং বাসায় মারা গেছেন ১২ জন।

অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা বলেন, ”সচেতনতা, সাবধানতা, সতর্কতা আমাদের সুরক্ষিত রাখতে পারে। আপনার সুরক্ষা আপনার হাতে। কাজেই সুরক্ষার জন্য যেসব স্বাস্থ্যবিধির কথা বলা হয়, সেগুলো মেনে চলুন। নিজে সুরক্ষিত থাকুন, পরিবারের সকল সদস্যকে সুরক্ষিত রাখুন। সবসবময় মাস্ক ব্যবহার করুন, বারবার সাবান পানি দিয়ে হাত ধোয়া, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন।”

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য