পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর আপাতত চালু হচ্ছে না। জেলা প্রশাসন সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বর্তমানে এই বন্দর দিয়ে শুধু পাথর ছাড়া উল্খেযোগ্য জরুরি পণ্য আমদানি রপ্তানি হয় না। করোনাময় পরিস্থিতির কারণে গেল ২৫ মার্চ থেকে সকল প্রকার আমদানি রপ্তানি বন্ধ রয়েছে চতুর্দশীয় এই স্থল বন্দর দিয়ে।

জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সংসদ সদস্য মজাহারুল হক প্রধান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী, সিভিল সার্জন ডা ফজলুর রহমান, আমদানি রপ্তানিকারক এসোসিয়েশনের সভাপতি মেহেদী হাসান খান বাবলা, স্থলবন্দরের ম্যানেজার কাজী আল তারিকসহ প্রশাসনের কর্মকর্তা ও বন্দর সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন। রপ্তানিকারক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মেহেদী হাসান খান বাবলার বন্দর চালুর বিষয়ে আবেদনে তাৎক্ষণিক এই বৈঠকের শুরুতে তিনি জানান, করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও দেশের বিভিন্ন সীমান্তে স্থলবন্দর চালু করা হচ্ছে।

রাজস্ব আদায় এবং দেশের অর্থনীতির স্বার্থে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বন্দরটি চালু করা প্রয়োজন। এখানকার শ্রমিকরাও দীর্ঘদিন কর্মহীন হয়ে আছেন। বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের ম্যানেজার কাজী আল তারিক বলেন, করোনাময় এই পরিস্থিতিতে দেশের বাইরের চালকরা গাড়ি নিয়ে বন্দরে ঢুকলে তাদের স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা কঠিন। এই বন্দর দিয়ে শুধুই পাথর আমদানি করা হয়। এরপরও প্রশাসনের অনুমতি থাকলে বন্দর চালু করা হবে।

সংসদ সদস্য মজাহারুল হক প্রধান বলেন, আমাদের আরও কিছুদিন অপেক্ষা করা উচিত। ভয়াবহ পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলে আবারও সচল হয়ে উঠবে বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর। জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, সকলের মতামত এবং দেশের অর্থনীতিসহ সার্বিক দিক বিবেচনা করে বন্দর চালু করা হবে। আগে সেখানকার স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিষয়টি পর্যবক্ষেণ করা হবে। করোনা ঝুঁকি বিবেচনায় আপাতত বন্দরটি বন্ধ থাকছে। তবে শিগগির আবারও বৈঠকের মাধ্যমে চালুর বিষয়ে আলোচনা করা হবে।।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য