Dinajpur-10-05-14-জিন্নাত হোসেন॥ জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি বলেছেন, ২০০৮ সালে দেশে খাদ্য ঘাটতি ছিলো ১৭ লাখ মেট্রিক টন। কিন্তু গত ৫ বছরে সরকার কৃষকদের ভর্তুকি দিয়ে খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি করে দেশে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে। আওয়ামীলীগ সরকারের কার্যকরী পদক্ষেপের কারনেই বর্তমানে খাদ্য উদ্বৃত্তর দেশে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশ।

শনিবার দিনাজপুরে চতুর্থ আন্তর্জাতিক রাইস মিল এন্ড টেকনোলজী প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। দিনাজপুর স্টেশন ক্লাব প্রাঙ্গনে দুদিনব্যাপী এই প্রদর্শনীর আয়োজন করে দিনাজপুর জেলা চাউলকল মালিক গ্রুপ। ইকবালুর রহিম চাউলকল মালিক গ্রুপকে এ ধরনের প্রদর্শনীর আয়োজন করায় ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, এই প্রদর্শনী এ অঞ্চলের চাউলকল মালিক গ্র“পের সদস্যদের নতুন নতুন প্রযুক্তি সম্পর্কে ধারনা প্রদানে সহায়তা করবে। যাতে চালের উৎপাদন বৃদ্ধিতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করবে।

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দিতে গিয়ে দিনাজপুর জেলা চালকল মালিক গ্রুপের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব হুমায়ুন রেজা চৌধুরী শামীম বলেন, চালকল মালিকদের এই সংগঠনের কোন কার্যালয় নেই। তাই তিনি প্রধান অতিথি হুইপ ইকবালুর রহিম ও জেলা প্রশাসকের কাছে শহরে সরকারীভাবে নামমাত্র মুল্যে এক খন্ড জমি বরাদ্দ দেয়ার অনুরোধ জানান।

তাঁর এই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ শামীম আল রাজী বলেন, দিনাজপুর জেলার সবচেয়ে ধনী ব্যাক্তিদের নিয়ে চালকল মালিকদের এই সংগঠন। কিন্তু তাদের অফিস করার মতো একটা জায়গা নেই এবং কোনদিন এ ব্যাপারে তারা কোন উদ্যোগও নেয়নি। তিনি বলেণ, এতবড় সংগঠন হয়েও তাদের দিনাজপুরে কোন কর্পোরেট সোস্যাল রেন্সপন্সিবলিটি (সিএসআর) অথবা সামাজিক দায়বদ্ধতা নেই। অনেকে সংগঠন অনেকভাবে আবার অনেকে ব্যাক্তিগতভাবে সামাজিক দায়বদ্ধতামূলক কাজ করে থাকলেও এই সংগঠন এ ধরনের কাজ করেছে কি-না এ ব্যপারে প্রশ্ন তোলেন জেলা প্রশাসক।
Dinajpur-10-05-14
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি এ ব্যাপারে চালকল মালিক গ্র“পের নেতৃবৃন্দের সরকারী খাস জমি খুজে বের করার আহ্বান জানিয়ে নাম মাত্র মুল্যে নয়, সরকারী মুল্যে তাদের জমি দেয়ার আশ্বাস দেন। জেলা চালকল মালিক গ্র“পের সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম হামিদুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, দিনাজপুরের পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আব্দুল কাদির, মেলা কমিটির আহ্বায়ক মোসাদ্দেক হুসেন প্রমুখ। দুদিন ব্যপী এই প্রদর্শনীতে বাংলাদেশ ছাড়াও ৫টি দেশের মোট ৩০টি স্টল বসানো হয়েছে। দেশগুলো হলো-ভারত, কোরিয়া, চীন, জাপান ও সুইজারল্যান্ড। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন গ্রুপের কোষাধ্যক্ষ সাদিকুল ইসলাম।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য