পুরোদমে গরম পড়ে গেছে,  করোনা সংক্রমণের ভয়ে এসি থেকে একটু দূরত্ব বজায় রাখতেই চাইছেন বেশিরভাগ মানুষ। কিন্তু গরম তো তা বলে শুনবে না! কাজেই জ্যৈষ্ঠের গরম আর আর্দ্রতা মিলিয়ে ঘাম হচ্ছে প্রচুর, আর সবচেয়ে বেশি ঘামছে চুল! স্ক্যাল্পে ঘাম বসে মাথার তালুতে বিশ্রী চুলকোচ্ছে, চুল উঠেও যাচ্ছে দেদার! সত্যি বলতে গরমের দিনে মাথার তালু ঘামা একটা বাজে সমস্যা! দেখে নিন কীভাবে রেহাই পাবেন এই সমস্যা থেকে!

একদিন অন্তর শ্যাম্পু করুন
যদিও সপ্তাহে দু’বার, বড়োজোর তিনবারের বেশি শ্যাম্পু করা ঠিক নয়, তবে মাথায় খুব ঘাম জমলে উপায় নেই। হালকা ক্ল্যারিফায়িং শ্যাম্পু তালুতে অল্প একটু ঘষে চুল ধুয়ে নিন। প্রতিবার চুলে কন্ডিশনার অবশ্যই লাগাবেন, তাতে স্ক্যাল্প আর চুল দুইই তরতাজা থাকবে।

চুল ছোট করে কেটে নিন
যেহেতু বাড়ি থেকে বেরোনোর পাট আপাতত নেই, কাজেই চুল একটু ছোট করে কেটে ফেললে আরাম পাবেন। এ কাজে বাড়ির কারও সাহায্য নিতে হবে। নিজেও কাটা যায়, কিন্তু এক্সপার্ট হাত না হলে সে ঝুঁকি না নেওয়াই ভালো। শ্যাম্পু করা চুল ভালো করে আঁচড়ে আঁচড়ে বড়ো কাঁচি দিয়ে কেটে ফেলুন। একটু এদিক ওদিক হলে ক্ষতি নেই, চুল আবার বড়ো হয়ে যাবে। পরে পার্লার থেকে সুন্দর করে কাটিয়ে নেবেন।

চুল সারাক্ষণ বেঁধে রাখবেন না
চুল কাটার সাহস পাচ্ছেন না? যদি চুল না কাটেন, তা হলে লম্বা চুল কিন্তু সারাদিন বেঁধে রাখবেন না! গরম এড়াতে অনেকে সেই কাজটাই করেন, ফলে চুলের গোড়ায় খুব ঘাম জমে যায়। মাঝেমাঝে চুল খুলে পাখার নিচে বসুন, ভালো করে চুলটা শুকিয়ে নিন।

ভেজা চুল বাঁধবেন না
চুল ভেজা অবস্থায় বেঁধে রাখলে চুলের ক্ষতি তো হয়ই, চুলের গোড়ায় ঘামও জমতে থাকে। চুল ভালো করে শুকিয়ে তবে আলগা করে বেঁধে রাখবেন। খুব টাইট করে বাঁধলে গোড়ায় চাপ পড়ে চুল দুর্বল হয়ে যাবে।

ভরসা রাখুন হেয়ার মাস্কে
বিশেষ বিশেষ হেয়ার মাস্ক চুলে ঘাম আর তেল জমা কমাতে পারে। তিন টেবিলচামচ লেবুর রসের সঙ্গে দু’ টেবিলচামচ ডাবের জল মিশিয়ে সেটা স্ক্যাল্পে ভালো করে ঘষে ঘষে মেখে নিন। 15 মিনিট রাখুন, তারপর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। স্ক্যাল্প পরিষ্কার হবে, চুলে একটা তরতাজা গন্ধও থাকবে।

পেপারমিন্ট অয়েলের কেরামতি
শ্যাম্পু বা তেল মাখার আগে তাতে কয়েক ফোঁটা পেপারমিন্ট অয়েল মিশিয়ে নিন। পেপারমিন্ট অয়েলে অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল গুণ রয়েছে যা স্ক্যাল্প ফ্রেশ রাখে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য