দিনাজপুর সংবাদাতাঃ মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড দিনাজপুর এর অধিনে অনুষ্ঠিত ২০২০ সালের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষার ফলাফল বোর্ড কমিটির অনুমোদন সাপেক্ষে আজ ৩১ মে ( সোমবার ) তথ্য প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার এর মাধ্যমে বোর্ড চেয়ারম্যান আবু বকর সিদ্দিক প্রকাশ করেন।

এ বছরের এসএসসি পরীক্ষা শুরু হয় ৩ ফ্রেব্রæয়ারী, শেষ হয় ২৭ ফেব্রæয়ারী।২৯ ফেব্রæয়ারী থেকে ৫ মার্চের মধ্যে ব্যবহারিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

এ বছর দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ড থেকে মাধ্যমিক সমমানের পরিক্ষায় অংশগ্রহন করেছিলেন ১৯১৮২১ জন শিক্ষার্থী। যাদের মধ্যে পাশ করে ১৫৮৬৮৫ জন শিক্ষার্থী। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১২০৮৬।

এ বারে দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডে পাশের হার ৮২.৭৩%, যা গত ছিল ৮৪.১০% গতবারের তুলনায় এবা দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের পাশের হার গত বারের তুলনায় ১.৩৭% কম।

গতবছরের তুলনায় এবার দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকশিক্ষাবোর্ডে এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে পাসের হার কমেছে। এ বছর ১ লাখ ৯১ হাজার ৮২১ পরীক্ষার্থীর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১ লাখ ৫৮ হাজার ৬৮৫ জন। পাস করেনি এমন শিক্ষার্থী ৩৩ হাজার ১৩৬ জন।

রোববার (৩১ মে) দুপুরে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. তোফাজ্জুর রহমান।

বেলা সাড়ে ১১টায় দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল প্রকাশ করা হয়। এতে এই শিক্ষাবোর্ড এবছর গড় পাসের হার ৮২.৭৩ শতাংশ। যা গতবার ছিল ৮৪.১০ শতাংশ।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. তোফাজ্জুর রহমান জানান, এবছর দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডে এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে কমেছে পাসের হার। কমেছে শতভাগ পাস করা স্কুলের সংখ্যাও। তবে জিপিএ-৫ বেড়েছে।

তিনি আরও জানান, দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডে এবার ৩৩ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী পাস করেনি। যারা ফেল করেছে তাদের মধ্যে অধিকাংশ গণিতে ফেল করেছে। স্কুলগুলোতে মাস্টার ট্রেইনার শিক্ষকের অভাবে এই ফল বিপর্যয় হয়েছে।

আগামী দিনে ছাত্রদেরকে গড়ে তুলতে গণিত বিষয়ের শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ বাড়ানোর তাগিদ দিয়ে এই কর্মকর্তা জানান, এ বছর শতভাগ পাসকৃত বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১২২, যা গতবার ছিল ১৩৮টি। কেউই পাস করেনি এমন বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১টি। এবার গড় পাসের হার কমলেও জিপিএ-৫ বেড়েছে।

১২ হাজার ৮৬ জন এবছর জিপিএ-৫ পেয়েছে। যা গতবারের চেয়ে ৩ হাজার ৬৩ জন বেশি পেয়েছে। ছাত্রদের তুলনায় ছাত্রীরা ভালো ফলাফল করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য