ডেক্স রিপোর্টঃ প্রবল ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে রাজশাহীতে চলছে ভারী বর্ষণ। দিনভর গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হলেও গতকাল বুধবার (২০ মে) রাত ৮ টার পর থেকে শুরু হয় ভারী বর্ষণ। এরপর থেকে মুষলধারে বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়া চলছে।

আজ বৃহস্পতিবার এই রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত ঝড় বৃষ্ট চলছে। গতকাল রাত ৯টা থেকে পুরো শহরই প্রায় বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে। ঝড়-বৃষ্টির আগেই বিদ্যুৎ চলে গেলে শহরজুড়ে নেমে আসে অন্ধকার। তার মধ্যেই চোখ রাঙাচ্ছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় আম্পান। আন্ধাকারচ্ছন্ন নগরবাসী ভারী বর্ষণে হিমশিম খাচ্ছেন।

সকালে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে দিনাজপুরে লিচু ও আমের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে এবং মাঠে উঠতি ধান সহ ফসল নষ্ট হয়েছে দেখা যায়। মারাত্মক ফসলহানীর আশঙ্কায় স্থানীয় কৃষকদের রাতের ঘুম হারাম হয়ে গেছে। দিনাজপুরের উপজেলা গুলো থেকে টিনের ঘর ও কাঁচা ঘর-বাড়ির চালা উড়ে যাওয়া ও ধসে পড়া এবং গাছপালা উপড়ে যাওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে।

তবে এখন পর্যন্ত দিনাজপুর জেলায় কোন হতা হতের খবর পাওয়া যায়নি। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর নাগাদ দিনাজপুরে ঘুর্নিঝড়ের প্রভাব আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। সেই সাথে থাকবে বৃষ্টি।

বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ জানাচ্ছে, ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পান’ সাতক্ষীরায় তাণ্ডব চালিয়ে রাজশাহী গিয়ে দুর্বল হয়ে পড়েছে। কিন্তু ঝড়ের লেজ উপকূলের দিকে থাকায় ১৫ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, তারা যে কোন সময়ে মহাবিপদ সংকেত নামিয়ে স্থানীয় সতর্ক সংকেত জারি করবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য