করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ অবস্থানকে একদিক থেকে গর্বের বিষয় হিসেবে দেখছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তার মতে, এটি তার দেশের জন্য ‘সম্মানের।’ মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসে তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, বেশি আক্রান্ত হওয়ার ঘটনাই প্রমাণ করে যে তার দেশে সবথেকে বেশি টেস্ট হয়েছে।

বিশ্বব্যাপী করোনায় আক্রান্ত ও প্রাণহানির তথ্য প্রকাশ করে আসা জনস হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ লাখের বেশি মানুষ। আর মারা গেছেন ৯২ হাজার। অন্য যেকোনো দেশের তুলনায় আক্রান্ত ও প্রাণহানিতে অনেক বেশি এগিয়ে থেকে যুক্তরাষ্ট্রই রয়েছে তালিকার শীর্ষে। ৩ লাখ আক্রান্ত নিয়ে এ তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে রাশিয়া।

ট্রাম্প বলেন, আমি বিষয়টিকে এভাবে দেখছি, যে একদিক থেকে ব্যাপারটা সম্মানের। আপনারা যখন বলেন, আমরা এক্ষেত্রে শীর্ষস্থানে রয়েছি, তখন আমি বলবো এটি ভালো। আক্রান্তের সংখ্যায় যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষে থাকার কারণ হচ্ছে, অন্য যে কোনও দেশের তুলনায় আমরা অধিক সংখ্যক পরীক্ষা করেছি। ফলে আমাদের আক্রান্তের সংখ্যা বেশি হলেও এটিকে আমি খারাপ হিসেবে দেখছি না। বরং আমার কাছে এটি সম্মানজনক। কেননা, অধিক সংখ্যক আক্রান্তের অর্থ হচ্ছে, আমাদের পরীক্ষা পদ্ধতি অনেক ভালো।

ট্রাম্প বলেন, এই সম্মান যুক্তরাষ্ট্রের করোনা পরীক্ষার পদ্ধতি এবং এর সঙ্গে জড়িত বিপুল সংখ্যক পেশাদারের কাজের বড় ধরনের স্বীকৃতি।

এর আগে করোনা মোকাবিলায় ব্যর্থতার জন্য ট্রাম্প প্রশাসনের কঠোর সমালোচনা করেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। তিনি বলেছেন, ‘এই মহামারি ফাঁস করে দিয়েছে যে, দায়িত্বে থাকা অনেক মানুষই জানেন তারা কী করছেন! অনেকে এমনকি দায়িত্ব পালনের ভানটুকুও করার দরকার মনে করেন না।’

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য