কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার কেদার ইউনিয়নের ঢলুয়াবাড়ি সীমান্ত দিয়ে মানসিক ভারসাম্যহীন এক নারীকে বাংলাদেশে পুশ ইন করার অভিযোগ উঠেছে বিএসএফ’র বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার সকালে।

স্থানীয়রা জানান, ভারতের আসাম রাজ্যের ধুবরী জেলার গোলকগঞ্জ থানার কেদার ক্যাম্পের বিএসএফ সকাল ৯টার দিকে ৪৮নং গেট খুলে মানসিক ভারসাম্যহীন এক নারীকে বাংলাদেশের দিকে ঠেলে দেয়। এ সময় আসতে না চাইলে আন্তর্জাতিক সীমানা পিলার ১০১৯ এর সাব পিলার ৩ এর নিকট দিয়ে বিএসএসএফ তাকে মারধর করে পার করে দেয়।

বিষয়টি টের পেয়ে সীমান্তে কাজ করা কৃষক এবং স্থানীয় লোকজন প্রতিরোধ গড়ে তোলে এবং বিজিবিকে খবর দেয়। এ সময় ওই নারী কাঁটাতারের বাইরে ভারতের ১০০ গজ অভ্যন্তরে দাঁড়িয়ে থাকে। পরে বিজিবি এসে পতাকা বৈঠকের আহ্বান জানালে কয়েক ঘন্টা পর পতাকা বৈঠকের সারা দেয় বিএসএফ।

পতাকা বৈঠকে ভারতের পক্ষে নেতৃত্ব দেন বিএসএফ কেদার ক্যাম্পের এসি ধর্মেন্দ্র রায় এবং বাংলাদেশের পক্ষে নেতৃত্ব দেন কুড়িগ্রাম-২২ বিজিবির কেদার কোম্পানি কমান্ডার আবদুস সবুর। আন্তর্জাতিক সীমানা পিলার ১০১৯ এর সাব পিলার ৩ এর শূন্য রেখায় অনুষ্ঠিত পতাকা বৈঠকে ওই নারীকে বাংলাদেশী বলে দাবী করে বিএসএফ।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বিজিবির কেদার কোম্পানি কমান্ডার আবদুস সবুর বলেন, তথ্য যাচাই হচ্ছে উপযুক্ত প্রমাণ পেলে ওই নারীকে নিয়ে যাওয়া হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য