মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া নতুন করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বজুড়ে জনসাধারণের মধ্যে বাড়তে থাকা মানসিক চাপের ব্যাপারে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ।

বৃহস্পতিবার তাদের প্রকাশিত এক নথিতে সদস্য রাষ্ট্রগুলোকে তাদের কোভিড-১৯ মোকাবেলার পরিকল্পনায় মানসিক স্বাস্থ্য ও মনো-সামাজিক সহায়তার বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করতেও অনুরোধ করা হয়েছে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

জাতিসংঘের নথিটিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যে দীর্ঘদিন ধরে মানসিক স্বাস্থ্যসেবার বিষয়টি উপেক্ষা করে এসেছে তা উল্লেখ করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, নতুন করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামনের সারিতে থাকা স্বাস্থ্যকর্মী, কাজ হারানো শ্রমিক, ঘরবন্দি দশা, অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম, বয়স্কদের একাকিত্ব ও দুশ্চিন্তায় ভোগা এ সব কিছু মিলেই চলতি মহামারী বিশ্বের অসংখ্য মানুষের মানসিক স্বাস্থ্যে ভয়াবহ প্রভাব ফেলছে।

“কার্যকরী সমাজের জন্য ভালো মানসিক স্বাস্থ্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য যদি পদক্ষেপ না নেয়া হয় তাহলে বিশ্বকে কেবল শারিরীক স্বাস্থ্যজনিত সংকটেরই মুখোমুখি হতে হবে না, মানসিক স্বাস্থ্য সংকটেরও মোকাবেলা করতে হবে,” বলেছে জাতিসংঘ।

বৈশ্বিক এ সংস্থাটির আগে অনেক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞও করোনাভাইরাস মহামারীতে জনসাধারণের মানসিক স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিতে সরকার ও নীতিনির্ধারকের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন।

নানান বিধিনিষেধ ও কোভিড-১৯ এর কারণে অর্থনীতিতে যে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে তার ফলে আত্মহত্যার পরিমাণ বেড়ে যেতে পারে বলে কয়েকদিন আগেই অস্ট্রেলিয়ার গবেষকরা সতর্ক করেছেন।

গত মাসে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বিবিসি মানসিক চাপ কমাতে বন্ধু ও আত্মীয় স্বজনদের সঙ্গে বেশি বেশি যোগাযোগ, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কম সময় দেয়া এবং কী পড়ছেন তা সতর্কতার সঙ্গে বাছাই করাসহ বেশ কিছু পরামর্শ দিয়েছিল।

“আইসোলেশন, আতঙ্ক, অনিশ্চয়তা, অর্থনীতির টালমাটাল দশা- এসবই মানসিক যন্ত্রণার কারণ হচ্ছে কিংবা হতে পারে,” বলেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মানসিক স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচালক ডেভোরা কেস্টেল।

কোভিড-১৯ ও মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক জাতিসংঘের প্রতিবেদন ও এ সংক্রান্ত নীতি নির্ধারণী নির্দেশনা উপস্থাপন করে তিনি বলেন, মহামারীর এ সময়ে মানসিক অসুস্থতার সংখ্যা ও মাত্রা বাড়ছে। এ কারণে সরকারগুলোকে তাদের মহামারী মোকাবেলার পরিকল্পনায় সামনের দিকেই এই বিষয়কে রাখা উচিত।

“মানসিক স্বাস্থ্য এবং সমগ্র সমাজের সুস্থতার উপর এ সংকট ভয়াবহ প্রভাব ফেলছে এবং এ বিষয়টি অগ্রাধিকার তালিকায় থাকা উচিত,” বৃহস্পতিবার এক ব্রিফিংয়ে বলেছেন কেস্টেল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য