মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা ॥ ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড নীলফামারীর সৈয়দপুর শাখার ১৩ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে একসাথেই জ্বর, স্বর্দি, কাশি ও গলা ব্যাথার লক্ষণ প্রকাশ পেয়েছে। ফলে করোনা আক্রান্ত সন্দেহে পুরো শাখার কার্যক্রম বন্ধ করে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

২৮ এপ্রিল মঙ্গলবার সকালে শাখা ব্যবস্থাপক এ সংক্রান্ত নোটিশ ব্যাংকের গেটে ঝুলিয়ে দিয়েছেন। এতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ব্যাংক লডকাউন থাকবে। সন্দেহভাজনদের নমুনা সংগ্রহের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ খবরে সৈয়দপুর জুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

জানা যায়, গত কয়েকদিন যাবত ইসলামী ব্যাংকের ওই শাখার কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারী জ্বরে আক্রান্ত। কোনভাবেই তাদের জ্বর কমছিল না। এমতাবস্থায় জ্বরের সাথে স্বর্দি, কাশি ও গলা ব্যাথার লক্ষণও দেখা দিয়েছে অনেকের মাঝে।

ফলে পরিস্থিতি সন্দেহজনক হওয়ায় ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক আনোয়ারুল হক বিষয়টি লিখিতভাবে সিভিল সার্জন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ব্যাংকের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করেন। এর প্রেক্ষিতে ব্যাংকের কেন্দ্রীয় কর্র্তৃপক্ষ আপাতত সার্বিক কার্যক্রম বন্ধ করে লকডাউন করার নির্দেশ দেয়ায় সে অনুযায়ী নোটিশ প্রদান করা হয়। পাশাপাশি সৈয়দপুর উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জ্বর-স্বর্দি-কাশিতে আক্রান্ত কর্মকর্তা কর্মচারীদের পর্যায়ক্রমে নমুন সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছে।

এ ব্যাপারে ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক মোঃ আনোয়ারুল হক বলেন, বিগত কয়েকদিন যাবতই আমাদের কয়েকজন স্টাফ জ্বর-স্বদি ও কাশিতে আক্রান্ত। তাদের এ লক্ষণগুলো কোনক্রমেই কমছেনা। পাশাপাশি আজ তাদের কয়েকজনের গলা ব্যাথার লক্ষণও প্রকাশ পেয়েছে। একারণে বিষয়টি করোনা আক্রান্ত সন্দেহজনক মনে হওয়ায় সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের শাখায় নীলফামারীর উত্তরা ইপিজেড এ কর্মরত চীনা ও ইতালিয়ানরা লেন দেন করেন। তারা এখানে এসে কোন নিয়মই মানতে চাননা। সম্ভবত তাদের মাধ্যমেই করোনার সংক্রমন ঘটে থাকতে পারে। এসময় তিনি তার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সুস্থতার জন্য সকলের কাছে দোয়া কামনা করেন।

সৈয়দপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ আলিমুল বাশার জানান, ইসলামী ব্যাংকের একটি আবেদন পেয়েছি। সে অনুযায়ী আগামী বৃহস্পতিবার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য