উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন ‘জীবিত ও ভালো আছেন’ বলে জানিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে-ইনের একজন শীর্ষ নিরাপত্তা উপদেষ্টা।

দাদা উত্তর কোরিয়ার প্রতিষ্ঠাতা কিম ইল-সাং এর জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে কিমের অনুপস্থিতির পর থেকে তার শারীরিক অবস্থা নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তীব্র জল্পনা দেখা দেয়।

কিন্তু এসব জল্পনাকে গুরুত্ব না দিয়ে মুনের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক বিশেষ উপদেষ্টা মুন চুন ইং রোববার সিএনএনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, “কিম জং উন জীবিত ও ভালো আছেন, এ বিষয়ে আমাদের সরকারের অবস্থান দৃঢ়।”

১৩ এপ্রিল থেকে কিম দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় রিসর্ট শহর উনসানে আছেন এবং সেখানে ‘এখনও পর্যন্ত কোনো সন্দেহজনক গতিবিধি শনাক্ত হয়নি’ বলে জানিয়েছেন তিনি।

গত ১১ এপ্রিলে একটি পলিটব্যুরো বৈঠকে কিম জং-উনকে সর্বশেষ সভাপতিত্ব করতে দেখা গিয়েছিল। এরপর থেকে উত্তর কোরিয়ার কোনও রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমেই তার ছবি দেখা যায়নি বা ভাষণ প্রকাশিত হয়নি। তার শরীর-স্বাস্থ্য নিয়েও পিয়ংইয়ংয়ের কোনো সংবাদমাধ্যম মুখ খোলেনি।

গত ১৫ এপ্রিল কিমকে তার দাদা ইল-সাংয়ের জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানেও দেখা যায়নি। এই দিনটি উত্তর কোরিয়ার রাজনৈতিক ক্যালেন্ডারে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিন।

জনসম্মুখে দু’সপ্তাহ ধরে তার অনুপস্থিতি এবং তার অসুস্থতা নিয়ে যে সব খবর পাওয়া যাচ্ছে সে ব্যাপারে উত্তর কোরিয়ার গণমাধ্যমগুলো নিশ্চুপ থাকায় ভাসা ভাসা কিছু খবর এবং স্যোশাল মিডিয়ায় প্রকাশিত খবর থেকে নানারকম জল্পনা ডালপালা মেলে। তার শারীরিক অবস্থা নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে অসমর্থিত অনেক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

কিন্তু আগেই এসব জল্পনায় জল ঢেলে দিয়েছিলেন সিউলের কর্মকর্তারা।

গত সপ্তাহে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট দপ্তর থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়েছিল, “আমাদের নিশ্চিত করার মতো কিছু নেই এবং এখনও পর্যন্ত উত্তর কোরিয়ার ভিতরে কোনো বিশেষ গতিবিধি শনাক্ত হয়নি।”

দক্ষিণ কোরিয়ার ‘একত্রীকরণ’ মন্ত্রী কিম ইয়ন-চুলও সোমবার একই কথার পুনরাবৃত্তি করেন। তিনি জানান, সংগৃহীত গোয়েন্দা তথ্য পর্যালোচনার জটিল প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কিমের বিষয়ে ‘সুনিশ্চিত’ সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিউল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য