আজিজুল ইসলাম বারী, লালমনিরহাট থেকেঃ লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারী সীমান্ত দিয়ে গত বৃহস্পতিবার ভারতীয় একজন মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তিকে বাংলাদেশে পুশইনের চেষ্টাকালে বিজিবি ও স্থানীয় জনতা বাধা দেওয়ার জেরে এতে ক্ষীপ্ত হয়ে বিএসএফ শর্টগানের গুলি ছুঁড়ে। বিএসএফের শর্টগানের ছোঁড়া গুলিতে বুড়িমারী স্থলবন্ধর ক্যাম্পের বিজিবি সদস্য খোকন মিয়াসহ তিন বাংলাদেশি আহত হয়েছেন। ফলে ওই সময় সীমান্তে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় বিজিবি বিএসএফকে পতাকা বৈঠকের জন্য পত্র দেয়।

এরপর শুক্রবার (২৪ এপ্রিল) দুপুরে বুড়িমারী স্থলবন্দর জিরো পয়েন্ট সীমান্তে দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ বিষয়ে রংপুর ৬১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের উপ- অধিনায়ক মেজর মুজাহিদ সাংবাদিকদের বলেন, এ ঘটনায় বৈঠকে বিএসএফ দুঃখ প্রকাশ ও ভুল স্বীকার করেছে । বিএসএফ কর্মকর্তারা দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণেরও আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানান তিনি।

বিজিবি সূত্র ও স্থানীয় একাধিক বাসিন্দা জানান, সীমান্তের ৮৪২ নম্বর মেইন পিলারের ২ নম্বর সাব পিলারের নিকট দিয়ে বিকাল সাড়ে পাঁচটার দিকে ভারতীয় ১৪৮ কোচবিহার বিএসএফ ব্যাটালিয়নের চ্যাংরাবান্ধা ক্যাম্পের প্রায় ২০ জন বিএসএফ সদস্যের একটি দল বুড়িমারী- চ্যাংরাবান্ধা জিরোপয়েন্টের অভিবাসন চৌকির পাশ দিয়ে একজন মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তিকে বাংলাদেশে পুশইনের চেষ্টা চালায়। এ সময় স্থানীয়রা বাসিন্দা পুশইনের চেষ্টা প্রতিহত করে।

এরপর বিএসএফের প্রায় ৭০/৮০ জনের একটি দল বাংলাদেশের কমপক্ষে দেড় শত গজ অভ্যন্তরে প্রবেশ করে ও মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তিকে পূণরায় বাংলাদেশে ঢুকিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে। এ ঘটনায় আবারও বাধা দেয় বিজিবি ও সীমান্তবাসীরা। পরে শর্টগানের অন্তত ৬ রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে ভারতীয় ভূখণ্ডে ফিরে যায় বিএসএফ সদস্যরা। এদিকে বিএসএফের ছোঁড়া শর্টগানের গুলিতে বুড়িমারী ক্যাম্পের বিজিবি সদস্য খোকন মিয়াসহ তিন বাংলাদেশি আহত হয়েছেন।

শুক্রবার বেলা একটায় বুড়িমারী জিরো পয়েন্টে বিজিবি- বিএসএফ পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে বিজিবির পক্ষে নেতৃত্ব দেন রংপুর সেক্টর কমান্ডার কর্নেল আলীমুল করীম চৌধুরী, রংপুর ৬১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোজাম্মেল হক, মেজর মুজাহিদ ও ৬১ বিজিবি বুড়িমারী স্থলবন্ধর ক্যাম্পের কম্পানি কমান্ডার সুবেদার ওমর ফারুক।

বিএসএফের পক্ষে নেতৃত্ব দেন বিএসএফের জলপাইগুড়ি সেক্টরের ডিআইজি মহেন্দ্র সিং সারন, ১৪৮ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের সিও সাহিত্য মুর্খাজি, বিএসএফ সদর দপ্তরের সিও বানাম্বর শাহ প্রমুখ।

এ বিষয়ে রংপুর ৬১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোজাম্মেল হক ‘বৈঠকের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পুশইনের ঘটনা যাতে না ঘটে সেজন্য বিএসএফকে বলা হয়েছে।’

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য