দিনাজপুর সংবাদাতাঃ চিরিরবন্দরে ত্রানের দাবিতে পরিকল্পিতভাবে দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়কের চম্পাতলী বাজারে গাছের গুড়ি ফেলে অবরোধ করলে উভয় পার্শ্বে ২ শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক ও গাড়ি আটকা পড়ে। এতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আয়েশা সিদ্দীকা, থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ সুব্রত কুমার সরকার, দশমাইল হাইওয়ে থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ জি এম শামসুন নূর ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে তাদেও ত্বড়িৎ হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয় এবং যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। এ ঘটনাটি ২২ এপ্রিল বুধবার সকাল সাড়ে ১০ টায় উপজেলার ফতেজংপুর ইউনিয়নের চম্পাতলী বাজারে ঘটেছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, চিরিরবন্দরের বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম তারিকের পোষ্যপুত্র জুয়েল ইসলাম নেতৃত্বে ত্রাণের দাবিতে দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়কের চম্পাতলী বাজারে গাছের গুড়ি ফেলিয়ে অবরোধ করে। এ সময় ২ শতাধিক পণ্যবাহি ট্রাক দুপার্শ্বে আটকা পড়ে। ক্ষুদ্ধ জনগণ খাদ্যবাহি গাড়িতে লুটপাটের চেষ্টা চালায়। হাইওয়ে থানার পুলিশ ও চিরিরবন্দর থানার এস আই আশরাফুজ্জামান তাতে বাধা দেয়।
ওই মুহুর্তে উপজেলা চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম তারিক ঘটনাস্থলে পৌঁছলে তার পোষ্যপুত্র জুয়েল সটকে পড়লে লোকজন ফাঁকা হতে শুরু করে।

এরপর উপজেলা চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে লোকজন ইউনিয়ন পরিষদ অফিস চত্ত্বরে জমায়েত হয়। উপজেলা চেয়ারম্যান ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ লুনারকে ৪র্থ দফা পর্যন্ত ওয়ার্ড ওয়ারী কতজন সরকারি বরাদ্দ পেয়েছে, জনগণের উদ্দেশ্যে তা জানাতে বলেন। ইউপি চেয়ারম্যান এ সময় জানান, ফতেজংপুর ইউনিয়নের মোট জনসংখ্যা ৪১ হাজার ২৬১ জন।

তৎমধ্যে ৬৬ শত পরিবারকে ত্রানের আওতায় আনার জন্য তালিকাভূক্ত করা হয়েছে। ১ম পর্যায়ে পুরো ইউনিয়নে ১ শত পরিবার, ২য় পর্যায়ে ১শত, ৩য় পর্যায়ে ২৩০টি,৪র্থ পর্যায়ে ৪৬০ টি পরিবার ত্রান সহায়তা পেয়েছে। ৫ম পর্যায়ে ২২০ টি পরিবার ত্রাণ সহায়তা পাবে। পর্যায়ক্রমে তালিকাভূক্ত সকলেই পাবে। নতুন কোন লোক খাদ্য সংকটে পড়লে তাকে সহায়তা দেয়া হবে। এতে লোকজন আশ্বস্ত হলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য