যুক্তরাষ্ট্রে লকডাউনের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমেছেন বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্যের মানুষ। করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে এসব অঙ্গরাজ্যে জনগণকে ঘরে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মিশিগান, ওহাইয়ো, কেন্টাকি, মিনেসোটা, নর্থ ক্যারোলাইনা ও উতাহ অঙ্গরাজ্যে করোনার প্রাদুর্ভাবে অর্থনৈতিক সংকটের আশঙ্কায় লকডাউনের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমেছেন মানুষ। এই বিক্ষোভকারীদের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। দেশটির সংবাদমাধ্যম সিএনএন এখবর জানিয়েছে।

মিশিগানের গভর্নর গ্রেচেন হুইটমার বলেন, অল্প কয়েকজন মানুষ বিক্ষোভ করছেন এবং এটি তাদের অধিকার। মানুষ ঘরে থাকতে চাইছে না। জীবিকা নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন।

হুইটমার আরও বলেন, দুঃখের বিষয় হলো, তারা যত বাইরে বের হবেন, ভাইরাসের তত বিস্তার হবে এবং আমাদের এই লকডাউন আরও দীর্ঘমেয়াদের জন্য বহাল রাখতে হবে।

বুধবার মিশিগানের রাজধানীতে গাড়িতে বসে বিক্ষোভ করেন লোকজন। আয়োজকরা এই বিক্ষোভের নাম দিয়েছেন অপারেশন গ্রিডলক। বিক্ষোভে কয়েক মাইল দীর্ঘ ছিল গাড়ির সারি।

টম নামের বিক্ষোভকারী বলেন, আমি জানি ভাইরাস কত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু আমরা এখন এমন অবস্থায় পৌঁছে যাচ্ছি যেখানে শাটডাউন বেশি হয়ে যাচ্ছে।

অবশ্য বিক্ষোভকারীদের সবাই গাড়িতে অবস্থান করেননি। অনেকেই গাড়ি থেকে নেমে গেছেন।

মিশিগান নার্সেস অ্যাসোসিয়েশন এক বিবৃতিতে এই বিক্ষোভকে দায়িত্বজ্ঞানহীন বলে আখ্যায়িত করেছে।

বৃহস্পতিবার মিনেসোটার গভর্নরের বাসভবনের সামনে বিক্ষোভ করা হয়। বিক্ষোভকারীদের এক মুখপাত্র জানান, অর্থনৈতিক ক্ষতি ও হতাশাসহ বিভিন্ন ইস্যুতে তারা লকডাউন প্রত্যাহার চান।

কেন্টাকির রাজধানী ফ্রাঙ্কফুর্টে বিক্ষোভকারীরা বুধবার বিক্ষোভ করেন। শুরুতে বিক্ষোভকারীরা সামাজিক দূরত্ব মেনে চললেও একপর্যায়ে তা ভেঙে পড়ে।

উতাহ অঙ্গরাজ্যের ওয়াশিংটন কাউন্টিতে বিক্ষোভকারীরা ঘরে থাকার নির্দেশকে অসাংবিধানিক আখ্যা দিয়েছেন।

নর্থ ক্যারোলাইনাতে মঙ্গলবার বিক্ষোভ হয়। ডেমোক্র্যাটিক গভর্নর রয় কুপারের নির্বাহী আদেশের বিরোধিতায় বিক্ষোভকারীরা রাস্তায় নামেন।

লকডাউনবিরোধী বিক্ষোভকারীদের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। একাধিক টুইট বার্তায় তিনি এই সমর্থন জানান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য