বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের কারণে আতংক-উদ্বেগের মধ্যেই দক্ষিণ কোরিয়ায় বুধবার চলছে জাতীয় নির্বাচন।

তবে, সুরক্ষা পোশাক এবং পরীক্ষার পরই কেবল ভোটারদের বুথে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে। তাপমাত্রা মাপার পর যাদের শরীরে জ্বরের উপস্থিতি পাওয়া যাচ্ছে তারা আলাদা বুথে ভোট দিচ্ছেন। কোয়ারাইনটিনে যারা রয়েছেন তাদের জন্যে বিশেষ বুথের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

দেশটির স্থানীয় সময় সকাল ৬টায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। ভোট দিচ্ছেন ৪ কোটি ৩৯ লাখ ভোটার।

মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান নুন সুন ইল বলেন, খুব কঠিন সময়ে আমরা নির্বাচনের আয়োজন করেছি। যখন আমরা সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে প্রচারণা চালাচ্ছি এবং অর্থনৈতিক কর্মকান্ড সীমিত হয়ে পড়েছে।

চীনের বাইরে প্রথম করোনা ছড়িয়ে পড়ে দক্ষিণ কোরিয়ায়। প্রথমদিকে করোনা খুব দ্রুত দেশটিতে ছড়িয়ে পড়লেও এখন তারা এর নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছে। পরীক্ষা বাড়িয়ে দিয়ে রোগী শনাক্তকরণ, কোয়রাইনটিনের মতো ব্যবস্থা এবং বাইরে থেকে যারা আসছেন তাদের সঙ্গনিরোধ বাধ্যতামূলক করার মাধ্যমে তারা করোনার বিস্তার ঠেকাতে পেরেছে।

এদিকে, নির্বাচনী প্রচারণাকালে করোনা নিয়ন্ত্রণে নেয়া পদক্ষেপগুলো মেনে চলা হয়েছে। এছাড়া ইউটিউভ ও ইনস্ট্রগ্রাম ব্যবহার করে ভোটারদের কাছে টানার চেষ্টা করা হয়েছে।

নির্বাচানের আগে গত সপ্তাহে গ্যালপ পরিচালিত জরিপে ২৭ শতাংশ লোক করোনার কারণে নির্বাচন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করলেও ৭২ শতাংশই বলেছে তারা উদ্বিগ্ন নন। ইতোমধ্যে দেশটির প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইন আগাম নির্বাচনে ভোট দিয়েছেন।

করোনা মোকাবেলায় যথাযথ পদক্ষেপ নেয়ায় দেশটিতে এর সংক্রমণ কমে গেছে। সোমবারসহ গত ছয়দিনের প্রতিদিনে সর্বোচ্চ ৪০ জন আক্রান্ত হয়েছে। দেশটিতে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ১১ হাজার এবং মারা গেছে ২২২ জন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য