আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধাঃ গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলায় সরকারের ১০ টাকা কেজির খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির (ওএমএস’র) চাল চুরি করে বিক্রির সময় প্রায় ৫শ’ কেজি চালসহ সোমবার সাঘাটার পদুমশহর বাজার নয়াবন্দর বাজার এলাকা থেকে মজদার রহমানকে পুলিশ গ্রেফতার করে।

মজদার রহমান পদুমশহর ইউনিয়নের আজগর আলীর ছেলে এবং খাদ্য বান্ধব কর্মসুচির ডিলার ও রাকিব ট্রেডাসের্র স্বতাধিকারী।

এলাবাসিরা জানান, সাঘাটা উপজেলার পদুমশহরে রাকিব ট্রেডার্সের গুদাম ঘর থেকে লেয়ার মুগির বস-ায় চাল ভর্তি ১০টি ভ্যান সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়ার দিকে যাচ্ছিল। বিষয়টি এলাকাবাসির সন্দেহ হলে একটি ভ্যান আটক করে পুলিশ ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে খবর দিলে বোনারপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইসচার্জ ও সাঘাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ঘটনাস’লে এসে আটককৃত চালের বিষয়ে ভ্যান চালক আব্দুল মজিদকে জিজ্ঞাসাবাদ করে।

এসময় ভ্যান চালক জানায়, সরকারের খাদ্য বান্ধব কর্মসুচির (১০ টাকা কেজি) ডিলার মজদার রহমান তাকে চাল দিয়েছে বোনারপাড়া বাজারের চাল ব্যবস্যায়ী আব্দুল আজিজের গুদাম ঘরে পৌছে দেয়া জন্য।

পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর মোবাইল ফোন করে ডিলার মজদার রহমানকে ওই চালগুলোর বিষয়ে পদুমশহর ইউনিয়ন পরিষদে আসতে বলে। দীর্ঘ ৩ ঘন্টা অপেক্ষার পরে ডিলার মজদার না আশায় পরে তার গুদামে অভিযান চালিয়ে গুদাম ঘরের সরকারী চালের হিসাবে গরমিল পাওয়া করে তাকে গ্রেফতার করে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই এলাকার একাধিক ব্যক্তি জানান, মজদার রহমান উপকার ভুগিদের নামের ১০ টাকা কেজির চাল কম দামে কিনে বেশী দামে বিক্রির সাথে জড়িত। আজকের মতো মাঝে মাঝেই এই গুদাম থেকে অনেক ভোরে লেয়ার মুগির খাবার বহন করা বস-ায় করে সরকারি চাল কালোবাজারে বিক্রি করতো। প্রভাবশালী হওয়ায় তার বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায়নি।

এব্যাপারে সাঘাটা উপজেলা নির্বহী অফিসার মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর জানান, ডিলার মজদার রহমানের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দেয়া হয়েছে। তার ডিলারশীপ বাতিলসহ এই চক্রের সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস’া নেয়া হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য