করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত স্পেনে অবশেষে কমতে শুরু করেছে মৃতের সংখ্যা। একদিনে মৃত্যুর সংখ্যায় গত ২৪ মার্চের পর দেশটিতে সবচেয়ে কম মানুষের মৃত্যু হয়েছে শুক্রবার।

এদিন ৬০৫ জন কোভিড-১৯ রোগী মারা গেছেন বলে জানিয়েছে স্পেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। দুই সপ্তাহ আগেও যেখানে করোনাভাইরাসে মৃত্যু বাড়ার হার ছিল ২০ শতাংশ, তা এখন নেমে এল ৪ শতাংশে।

নতুন ৬০৫ জনের মৃত্যু নিয়ে স্পেনে শুক্রবার মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৮৪৩ জনে।

ওদিকে, করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা স্পেনে বৃহস্পতিবারের ১৫২,৪৪৬ জন থেকে শুক্রবার বেড়ে হয়েছে ১৫৭,০২২। আর সুস্থ হয়েছেন ৩ হাজার ৫শ’র বেশি মানুষ।

একমাস ধরে স্পেনে কঠোর লকডাউন চলছে। স্পেনের ন্যাশনাল সেন্টার ফর এপিডেমিওলজি (সিএনই) বলছে, ভাইরাসের বিস্তার উল্লেখযোগ্যভাবে কমে এসেছে। তাছাড়া, এরপর প্রতিদিন সুস্থ হয়ে ওঠা রোগীর সংখ্যা আক্রান্ত মানুষের সংখ্যাকে ছাড়িয়ে গেলে তা হবে আরেকটি মাইলফলক।

স্পেন লকডাউনের সময়সীমা ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়িয়েছে। মার্চের মাঝামাঝি সময় থেকেই মানুষ ঘরবন্দি আছে। তবে কোভিড-১৯ সংক্রমণ এবং মৃত্যু কমে আসতে থাকায় স্পেনের কর্মকর্তারা এখন কড়াকড়ি শিথিল করার কথা ভাবছেন।

“তবে এমন পদক্ষেপ খুব সতর্কতার সঙ্গেই নিতে হবে,” বলে সতর্ক করেছেন স্পেনের উপ-প্রধানমন্ত্রী।

স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ বলেছেন, সরকারিভাবে লকডাউন মে পর্যন্ত চলতে পারে। তবে অর্থনীতিকে সচল করতে খুব শিগগিরই কিছু কড়াকড়ি শিথিলও করা হতে পারে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য