দিনাজপুর সংবাদাতাঃ করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯ ছড়াচ্ছে কিন্তু থেমে নেই জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি। করোনা ভাইরাস যত তীব্রতর হচ্ছে হুইপের প্রতিরোধ কার্যক্রম ততই জোরদার হচ্ছে।

৯ এপ্রিল বৃহস্পতিবার দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজে কোভিড-১৯ পরীক্ষার জন্য পলিমার চেইন রি-এ্যাকশন (পিসিআর) মেশিন আভ্যন্তরিন করোনা ভাইরাস শনাক্ত করার জন্য মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের তত্তাবধানে স্থাপন করা হচ্ছে। স্বর্র্দি, জ্বরে আক্রান্ত রোগীদের জন্য পৃথক ভাবে ফ্লু ফিভার ইউনিট করা হয়েছে। হুইপ মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ শিবেস সরকারের হাতে পিসিআর মেশিন হস্তান্তর করেন।

হুইপ ইকবালুর রহিম সাংবাদিকদের বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ এবং করোনা ভাইরাস শনাক্তের জন্য দিনাজপুর সম্পন্ন ভাবে প্রস্তুত রয়েছে।

হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি দিনাজপুরে দ্রুত পিসিআর মেশিন প্রেরণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, আমি আমার জীবনকে জনগনের জন্য উৎস্বর্গীত করেছি। তিনি আত্মবিশ্বাস রেখে আরও বলেন, বাংলাদেশ ওলি আউলিয়ার দেশ। ইনশাল্লাহ আমরা অচিরেই করোনা ভাইরাস মুক্ত হবো। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তৃনমুল পর্যায়ে খোজ খবর রাখছেন এবং অফিস, আদালত, কল কারখানা, যানবাহন বন্ধ থাকার কারনে অনেক দিনমুজুর এবং মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছেন।

তিনি কর্মহীন মানুষদের বিনামুল্যে খাবার ব্যবস্থা করার জন্য সরকারি সাহায্য প্রদান করছেন এবং প্রশাসন ও দলের নেতাদের নির্দেশ দিয়েছে মানুষের ঘরে ঘরে গিয়ে অভুক্ত হতদরিদ্রদের খাদ্য সামগ্রী পৌছে দেয়ার জন্য। তিনি এই দুর্যোগে মানুষের পাশে দাড়াবার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান।

তিনি বলেন, চিকিৎসার জন্য কাউকে আর বাহিরে যেতে হবে না। এম আব্দুর রহিম রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এখন চিকিৎসা দেয়া হবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দেশের প্রতিটি হাসপাতালে পিসিআর মেশিন দেয়া হবে। তারই ধারাবাহিকতায় দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের কার্যক্রমের কাজ শুরু হয়ে গেলো। দেশের প্রতিটি মানুষ যেন চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত না হয় সে দিকে লক্ষ রাখতে হবে। এখনই সময় মানবসেবায় নিজেকে উৎস্বর্গীত করা। এ ছাড়া হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি নিজেই এলাকায় গিয়ে প্রতিদিন ব্যাপক ত্রান তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এ দিকে মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডাঃ শিবেস সরকার আশা ব্যক্ত করে বলেন. ২/৩ দিনের মধ্যেই করোনা ভাইরাস শনাক্তের কার্যক্রম শুরু হবে। দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ নির্মল চন্দ্র দাস বলেন, করোনা ভাইরাস রোগীদের চিকিৎসা ও শনাক্ত করনের জন্য স্বার্বক্ষনিক ৩১ জন চিকিৎসক ও ৩০ জন নার্স প্রস্তুত রয়েছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর সিভিল সার্জন ডাঃ আব্দুল কুদ্দুস, হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডাঃ নজমুল, কলেজের সহকারী অধ্যাপক ডাঃ নাদির হোসেন, ডাঃ নুরুজ্জামান প্রমুখ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য