দিনাজপুর সংবাদাতাঃ বিশ্বের প্রায় দেশে নভেল করোনা ভাইরাসের আক্রমনে দিশেহারা। পৃথিবীতে মহামারী আকারে নভেল করোনা ভাইরাস এর আক্রমনে সমগ্র বিশ্ব এখন অসুসস্থ। আমাদের দেশে এর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে।

সেই দিক থেকে প্রানঘাতী করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমন প্রতিরোধে আমাদের দিনাজপুর জেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনের সংখ্যা দিন দিন কমতে শুরু করেছে। করোনা ভাইরাসের প্রতিরোধের জন্য সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখাসহ সচেতনমূলক বিভিন্ন কর্মকান্ডে নির্দেশ মোতাবেক আমাদের রক্ষার্থে গোটা দেশকে অবরুদ্ধ করেছে সরকার।

আমাদের চিকিৎসা ক্ষেত্রে এর প্রভাব পড়েছে। বিভিন্ন ক্লিনিক ও স্বাস্থ সেবা প্রতিষ্ঠানে খোঁজ নিয়ে জানা যায় রোগীর সংখ্যা অনেক কম, প্রায় শুন্য কোঠায় নামতে শুরু করেছে। দিনাজপুর বাহাদুরবাজার রোগ মুক্তি নার্সিং হোমস ও ডায়াগনিষ্টিক এর ব্যবস্থাপক মকবুল হোসেন বলেন, আমাদের ১০ সিটের ব্যবস্থা থাকলেও বর্তমানে কোন রোগী ভর্তি নেই।

সার্বক্ষনিক আমরা সেবা দেওয়ার জন্য খোলা রেখেছি। এই বিষয়ে সদর হাসপাতাল মোড়, বসুন্ধরা হসপিটাল এর ব্যবস্থাপক শরিফুল ইসলাম জানান এখানে বিভিন্ন ধরনের মানসম্মত অপারেশন হচ্ছে। বর্তমানে রোগী মাত্র তিনজন ভর্তি আছে সবাই প্রসুতি মা। সার্বিক পরিস্থিতি ও ডাক্তারদের অমনোযোগী আচরনসহ স্বল্পতার কারনে রোগী কম ভর্তি হচ্ছে। যদিও এখানে ৯টি জেনারেল বেডসহ ৬টি কেবিন রয়েছে।

এই বিষয়ে দিনাজপুর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাধায়ক ডাঃ আহাদ আলী বলেন, বর্তমানে হাসপাতালে ৭৫জন রোগী ভর্তি আছে। অর্ধেকের বেশী সিট খালি আছে। সার্বিক পরিস্থিতি ও যোগাযোগের ব্যবস্থা দুরুহ হওয়ায় রোগী কম আসছে। ডায়রিয়া ও প্রসূতি রোগী বেশী, আন্যান্য রোগীও ভর্তি হয়েছে। এখানে ডাক্তারা সার্বক্ষনিক সেবা দিচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য