দিনাজপুর সংবাদাতাঃ বিরামপুর উপজেলায় জ্বর সর্দি-কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে ফরহাদ হোসেন (৪০) নামে এক ব্যাক্তি মারা গেছেন। করোনা ভাইরাস সন্দেহে মৃত ওই ব্যাক্তির গ্রামের ৩০ টি বাড়ীর প্রায় দেড়শত মানুষকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার নির্দেশ দিয়েছে স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন।

সোমবার ভোরে বিরামপুর উপজেলার জোতবানী ইউনিয়নে আঁচলকোল তফসীগ্রামে তার মৃত্যু হয়। ফরহাদ হোসেন আঁচলকোল তফসীগ্রামের আবু হানিফের ছেলে। তার পরিবার সুত্রে জানা যায়, স্থানীয় তিন যুবকসহ চলতি মাসে কুমিল্লায় কাজের সন্ধানে যান। সেখানে গিয়ে তার শরীরে জ্বর অনুভব হলে সে এলাকায় ফিরে আসে। সর্বশেষ সোমবার ভোর রাতে নিজ বাড়িতেই মারা যায়।

দিনাজপুরের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ জানান, ওই ব্যাক্তি কুমিল্লার এক প্রবাসী ফেরত নাগরিকের বাসায় কাজ করতো। জ্বর, সর্দি ও কাশি নিয়েই সে সাতদিন আগে সে কুমিল্লা থেকে ফিরেছে। সিভিল সার্জন জানান, আইইসিডিআর-এর নির্দেশনা অনুযায়ী তার নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে এবং মরদেহ আইইসিডিআর-এর নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্য বিভাগের ব্যবস্থাপনায় দাফন করা হবে। তিনি জানান, নমুনা পরীক্ষার পর পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যাবে, সে আসলেই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন কি না?

বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ তৌহিদুর রহমান জানান, ওই গ্রামের ৩০ টি বাড়ীর প্রায় দেড়শত মানুষকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে এবং ইতিমধ্যেই গোটা গ্রাম ঘিরে রাখা হয়েছে।

এদিকে এই ঘটনার পর এলাকার মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য