দিনাজপুর সংবাদাতাঃ করেনা ভাইরাসের প্রভাবে হাতের নিকট সময়মত পত্রিকা না পেয়ে, রেডিওর খবর শুনা শুরু করেছে গ্রামের লোকজন। সম্প্রতিক করোনা ভাইরাস সংক্রমের আতঙ্কে ঘর থেকে বের হচ্ছেনা কেউ, শহরের চলছে অঘোষিত লোক ডাউন।

জাতীয় দৈনিক গুলো এখন সময়মত মফস্বল শহরে আসছেনা, গ্রামে অনেক সময় বিদুৎ পাওয়া যায়না, আবার সকলের বাড়ীতে নাই টেলিভিশন বা স্যাটেলাইট চ্যানেল, তাই দেশ-বিদেশের খবরসহ সম্প্রতিক করোনা ভাইরাসের বর্তমান পরিস্থিতির খবর জানতে গ্রামের লোকেরা এখন রেডিওর উপর ভরসা করছে।

সোমবার দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার প্রত্যান্ত অঞ্চলের গ্রাম গুলোতে গিয়ে দেখা যায়, কারোনা ভাইরাসের কারনে তারা শহরে না আসলেও, গ্রামের মোড়ে মোড়ে বসে গল্প করছেন এবং দেশ-বিদেশের খবর জানার জন্য রেডিওতে খবর শুনছে।

কাটাঁবাড়ী নয়াপাড়া গ্রামের সালাউদ্দিন মিয়া বলেন রেডিওতে খবর শুনে তিনি মুক্তি যুদ্ধে গিয়েছিলেন, এছাড়া দেশ বিদেশের খবর জানতে তিনি এখনো রোডিওতে খবর শুনেন।

মুক্তিযোদ্ধা জলিল উদ্দিন বলেন তিনি নিয়মিত পত্রিকা পড়েন খবর জানার জন্য, কিন্তু কয়েক দিন থেকে বাজারে ঢাকা থেকে প্রকাশিত বহুল প্রচারীত খবরের কাগজ গুলো পাওয়া যাচ্ছেনা, ফলে তিনিও এখন রেডিওতে খবর শুনেন।

ষাটউর্দ্ধ বয়সী বছির উদ্দিন বলেন এখন ইন্টারনেটের যুগে অনলাইনে যুবকরা পত্রিকা পড়ছেন, কিন্তু তিনি ইন্টারনেট চালাতে পারেননা, এই কারনে তিনি রেডিওতে খবর শুনেন।

প্রবীন সাংবাদিক সহকারী অধ্যাপক শেখ সাবীর আলী বলেন, সভ্যতার শুরু থেকে মানুষ খবর জানতে চায়, খবর মানুষের মনের খাদ্য যোগায়, তাই মানুষ খবর পাওয়ার জন্য সব সময় চেষ্টা করে, সম্প্রতিক করোনা ভাইরাস যে ভাবে সারা বিশে^ আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে, সেই কারনে মানুষ খবর জানার বেশি আগ্রহী হয়ে উঠেছে, মানুষের খবর জানার একটি বড় মাধ্যম হচ্ছে পত্রিকা বা খবরের কাগজ, কিন্তু সম্প্রতিক খবরের কাগজ গুলো সময়মত পাঠকদের হাতে না পৌছার কারনে তারা এখন রেডিও শুনতে শুরু করেছে।

খবরের কাগজের এ্যাজেন্ট আব্দুল মোন্নাফ সরকার বলেন খবরের কাগজের চাহিদা রয়েছে,কিন্তু অধিকাংশ খবরের কাগজ ঢাকা থেকে আসছেনা,এই জন্য সকল পাঠকের হাতে তারা খবরের কাজ পৌছাতে পারছেনা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য