কুড়িগ্রামের উলিপুর বাজারের রাস্তার পার্শ্বে প্রতিদিনেই শাক-সবজি পসরা সাজিয়ে বসেন ব্যবসায়ীরা। কিন্তু বর্তমানে করোনা ভাইরাস আতঙ্কের কারণে অনেকেই ঘর থেকে বের হয় না। ফলে ক্রেতা শুন্য ব্যবসায়ীদের শুনতে হচ্ছে লোকসানের বোঝা।

অনেক সবজি ব্যবসায়ী মনে করেন,এভাবে চলতে থাকলে ব্যবসা বন্ধ করে ঘরে বসে থাকতে হবে। পরিবার-পরিজনের ভরণ-পোষণের জন্য এসব ব্যবসায়ী বর্তমানে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ব্যবসা করলেও তা লাভে মুখ দেখছে না। উপজেলার হাট-বাজার ঘুরে এমন দৃশ্যই চোখে পড়েছে।

সরেজমিনে উপজেলার কয়েকটি হাট বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন প্রকার মৌসুমী শাক-সবজির পসরা সাজিয়ে বসে আছেন বিক্রেতারা। বাজারে বিক্রেতা থাকলেও ক্রেতা ছিল না। এ সময় কয়েকজন বিক্রেতার সাথে কথা বলে জানা গেছে, প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের কারণে মানুষজন বাজারে আসছেনা। বেচা কেনাও নেই।

কয়েকদিন থেকে লোকসান গুনতে হচ্ছে। এমন পরিস্থিতি চলতে থাকলে ব্যবসা বন্ধ করতে হবে। মালতিবাড়ি গ্রামের সবজি চাষী শাহিনুর রহমান জানান, এক বিঘা জমিতে বেগুন চাষ করেছি। কয়েকদিন আগেও প্রতিমণ বেগুন ১০০০ থেকে ১২০০ টাকায় বিক্রি হত। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে বর্তমানে ১৫০ থেকে ১৮০ টাকায় মণ বিক্রি করতে হচ্ছে।

উপজেলার কালু ডাঙ্গা গ্রামের লাউ চাষী কাঞ্চন বর্মন জানান, আগে একটি লাউ ৩০ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি হত এখন ক্রেতা না থাকায় লাউ আর বাজারে নিয়ে যাচ্ছি না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য