আজিজুল ইসলাম বারী, লালমনিরহাটঃ লালমনিরহাট সদর উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে হ্যান্ড মাইক হাতে মাঠে নেমেছেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সুজন।

শনিবার(২৮ মার্চ) সকালে উপজেলার মোগলহাট ইউনিয়নের ইটাপোতা কলোনী প্রত্যন্ত পল্লী গ্রামে তাকে মাইকিং করতে দেখা গেছে। এ কার্যক্রম এক সপ্তাহ ধরে চালাচ্ছেন তিনি।

জানা গেছে, বিশ্বজুড়ে আতংকের করোনা ভাইরাস (কোভিড ১৯) দেশেও সংক্রামিত হয়েছে। সারাবিশ্বে ২৭হাজার ছাড়িয়ে গেলেও দেশে মৃত্যুর সংখ্যা ৫জন এবং আক্রান্ত সারাবিশ্বে ৫লাখের অধিক হলেও বাংলাদেশে চিকিৎসকসহ ৪৮জন। সচেতনতাই প্রানঘাতি করোনা ভাইরাস সংক্রামন রোধের একমাত্র উপায় দাবি করে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা পরিচ্ছন্নতা, সতর্কতা ও সামাজিক দুরুত্ব বজায় রাখতে বলেছে। স্বাস্থ্য বিভাগের নির্দেশনায় দেশের শহরগুলো মেনে চললেও অনেকাংশে উদাসিন গ্রামীন জনপদ। অজ্ঞ অশিক্ষিত হতদরিদ্র খেটে খাওয়া মানুষগুলো সচেতন না হলে করোনায় বড় ভয়াবহতার আশঙ্কা করছেন সুশিল সমাজ।

গ্রামের অর্ধশিক্ষিত ও অশিক্ষিত কর্মজীবী মানুষদের সচেতন করা সরকারের বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দেখা দিয়েছে। সারাবিশ্ব প্রচারনা চললেও করোনা ভাইরাস কি সেটাও জানেন না লালমনিরহাটের তিস্তা-ধরলা চরাঞ্চল ও গ্রামাঞ্চলের খেটে খাওয়া সাধারন মানুষ।

করোনা ভাইরাস সংক্রামন ঠেকাতে জনসচেতনতা বাড়াতে গত এক সপ্তাহ ধরে গ্রামে গ্রামে পাড়ায় মহল্লায় হাত মাইক নিয়ে ছুটছেন লালমনিরহাট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সুজন। শুধু মাইকিং নয়। হতদরিদ্র ও দুঃস্থ পরিবারের লোকজনের হাতে তুলে দিচ্ছেন মাস্ক ও সাবান। প্রচার করছেন, করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচার উপায়। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাহিরে না আসার আহবান জানাচ্ছেন তিনি। তার প্রচারনার প্রশংসা করে সুধিজন সকল জনপ্রতিনিধি ও বিত্তবানকে দেশের আসন্ন দুর্যোগ মুহুর্তে এভাবে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

লালমনিরহাট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সুজন বলেন, ছাত্র অবস্থা থেকেই জনগনের সাথে সম্পৃক্ত আছি। জনসাধারনের প্রতিটি দুর্যোগে পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। এখন জনগনের প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। জনসচেতনতা বাড়াতে পারলে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। তাই এ প্রচেষ্টা। নিজে বাঁচতে প্রতিবেশীকে সচেতন করা আবশ্যক তাই সকলকে সাধ্যমত জনগনের পাশে দাঁড়ানোর আহবান জানান তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য