দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর কোতয়ালী থানার সামনে পুলিশের একটি গাড়ী অপেক্ষা করছে ৪ জন আসামীকে আদালতে নিয়ে যাওয়ার জন্য। এরপর থানা থেকে ৪ জন আসামীকে নিয়ে আসা হয় গাড়ীর সামনে। গাড়ীতে উঠানোর আগেই তাদের শরীরে, হাতে-পায়ে স্প্রে করা হয় জীবানুনাশক। প্রত্যেক আসামীর শরীরে ভালভাবে স্প্রে করার পরই তাদেরকে উঠানো হয় ওই গাড়ীতে।

আদালতে নিয়ে যাওয়া ওই ৪ জনই মোটরসাইকেল চোর চক্রের সক্রিয় সদস্য। বেশ কয়েকবার তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছিল, নিয়েও যাওয়া হয়েছিল আদালতে। কিন্তু এবারই প্রথম তাদের জন্য জীবানুনাশক স্প্রে করার এমন খাতির।

স্প্রে করার দায়িত্বে থাকা একজন কনষ্টেবল বলেন, বোতলের মধ্যে স্যাভলন বা ডেটল, পানি ছাড়াও অন্যান্য কিছু জীবানুনাশক রয়েছে। এসব স্প্রে করা হচ্ছে যাতে করে আসামীরাও করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকে। তাছাড়া আসামীদের আদালতে ব্যবহৃত যে গাড়ীটি রয়েছে সেটিও যাতে জীবানুমুক্ত থাকে।

জানতে চাওয়া হলে দিনাজপুর কোতয়ালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বজলুর রশিদ বলেন, একজন আসামীকেও সুরক্ষা দেয়া পুলিশের দায়িত্ব। এখন করোনা নিয়ে সবাই সচেতন। এই আসামীদেরকে রাতে আটক করা হয়েছে, কাদের সাথে মিশেছে সেটা বলা অসম্ভব। আবার তাদেরকে আদালতে প্রেরন করা হচ্ছে, তারাও অনেকের সাথে মিশবে। যাতে করে তাদের শরীরে কোন ধরনের ভাইরাস উপস্থিত না থাকতে পারে সেজন্য এই ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রতিটি আসামীর ক্ষেত্রেই এটি করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

এদিকে সকাল থেকেই দিনাজপুরের বিভিন্ন রাস্তা, অলি-গলিতে জীবানুনাশক স্প্রে করেছে ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরা। সকাল থেকেই জেলা শহরসহ ১৩টি উপজেলায় ৩টি ইউনিটে বিভক্ত হয়ে টহল দিচ্ছেন সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা। মাঠে রয়েছে র‌্যাব ও পুলিশ। তারা হ্যান্ড মাইকে ঘোষণার পাশাপাশি রাস্তাঘাটে অযথা চলাচলকারীদের বাড়িতে যাওয়ার আহবান জানিয়েছেন। সকাল থেকেই এমন অবস্থায় জেলা শহরের রাস্তাঘাটগুলো একেবারেই ফাকা, সুনশান নিরবতা বিরাজ করছে পুরো শহরজুড়ে।

দিনাজপুরের পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন জানান, করোনা ভাইরাসের বিষয়ে সচেতন করতে জেলায় গত কয়েকদিন ধরেই পুলিশ কাজ করছে। সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরনের পাশাপাশি সচেতনাতমূলক গান পরিবেশিত হচ্ছে। এছাড়াও প্রতিটি থানা, পুলিশ সুপার কার্যালয়, পুলিশ লাইনস কিংবা পুলিশ ফাঁড়িগুলোতে বাহির থেকে যাওয়া গাড়ীগুলোতে জীবানুনাশক স্প্রে করা হচ্ছে। যাতে করে গাড়ীর মাধ্যমে ওই ভাইরাস পরিবহন না হয়। এছাড়াও জনগনকে এই ভাইরাস থেকে দুরে রাখার জন্য দিন-রাতে পুলিশ মাঠে কাজ করছে এবং বাড়ীতে থাকার আহবান জানিয়ে আসছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য