দিনাজপুর সংবাদাতাঃ হঠাৎ করেই যেন পাল্টে গেছে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ পৌরশহরের দৃশ্যপট। ব্যক্তি নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে বীরগঞ্জ পৌর শহর ফাঁকা হয়ে পড়ছে পৌর শহর। এমন পরিবেশই কাম্য সকলের।

করোনাভাইরাসের প্রভাবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ হয়ে গেছে, জনসমাগম আগের আগের মতো নেই,গণপরিবহণে নেই আগের মতো চাপ। মার্কেটগুলো বন্ধ, রাস্তা -ঘাট ফাঁকা, খবার হোটেলগুলো বন্ধ। শুধু ওষুধ সহ নিত্যপালনীয় দ্রব্যবের দোকানে শুধু ক্রেতা দেখা যাচ্ছে। তাও আবার আগের তুলনায় কম। বেড়ে গেছে কিছু কিছু জিনিসপত্র ও মূল্যামূল্যের দাম।

বীরগঞ্জ পৌর শহরে খুব প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছে না সচেতন মানুষ। বাড়তি সতর্কতা হিসেবে অনেকেই বিভিন্ন ধরণের মাস্ক ব্যবহার করছেন।

২৫ মার্চ বুধবার সকাল থেকে হঠাৎ করেই পৌর শহরের এরকম চিত্র দেখা গেছে। দিকে বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, করোনাভাইরাসের কোনো রোগী এখনও পাওয়া যায়নি। বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইয়ামিন হোসেন সাংবাদিকদের জানান, এখন পর্যন্ত বীরগঞ্জ উপজেলায় ৬০ জন প্রবাসীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

বীরগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মোঃ সারোয়ার মোর্শেদ জানান এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসের আক্রান্ত রোগী সনাক্ত পাওয়া যায়নি। কিছু কিছু মানুষ হোম কোয়ারেন্টাইন থেকে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থতা লাভ করছেন। সবমিলিয়ে বীরগঞ্জের এখন পর্যন্ত অবস্থা ভালো রয়েছে ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য