অস্ট্রেলিয়ার একটি সমুদ্রসৈকতে নির্ধারিত সীমার চেয়ে বেশি মানুষ জড়ো হওয়ায় সেটি বন্ধ করে দিয়েছে সিডনি পুলিশ।

মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের মোকাবেলায় দেশটিতে খোলা জায়গায় ৫০০র বেশি মানুষের জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা আছে।

সেটি অমান্য করে বিপুল সংখ্যক মানুষ উপস্থিত হলে পুলিশ শনিবার থেকে বন্ডি সমুদ্রসৈকতটি সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয় বলে বিবিসি জানিয়েছে।

ফের কবে সমুদ্রসৈকতটি খুলে দেওয়া হবে, তা জানা যায়নি।

কভিড-১৯ থেকে সুরক্ষায় ‘ঘরে থাকার’ পরামর্শ অগ্রাহ্য করে এখনও বিপুল সংখ্যক মানুষ অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন সৈকতে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

শুক্রবারও বন্ডি সমুদ্রসৈকতের বিভিন্ন ছবিতে অসংখ্য মানুষকে সাঁতার কাটতে, সার্ফিং করতে ও বালিতে রোদ পোহাতে দেখা গেছে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

নিউ সাউথ ওয়েলসের পুলিশ ও জরুরি সেবা বিষয়ক মন্ত্রী ডেভিড এলিয়ট বলেছেন, যেসব সৈকতে ৫০০ জনের বেশি উপস্থিতি মিলবে, সেসবগুলোই সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হবে।

“লাইফগার্ডরা মাথা গুনবেন; যেসব সৈকতে ৫০০ জনের বেশি পাওয়া যাবে, সেগুলো বন্ধ করে দেওয়া হবে। মানুষজনকে চলে যেতে হবে। যদি কেউ আপত্তি করেন, পুলিশ তাকে সরিয়ে দেবে,” টেলিভিশনে প্রচারিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এমনটাই বলেছেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী গ্রেগ হান্ট সমুদ্রসৈকতগামীদের আচরণকে ‘একেবারেই অগ্রহণযোগ্য’ বলে অভিহিত করেছেন।

মানুষ যেন একে অপরের চেয়ে অন্তত দেড় মিটার দূরত্বে থাকার নির্দেশনা মেনে চলে, তা নিশ্চিতে ব্যবস্থা নিতে তিনি স্থানীয় কাউন্সিলগুলোর প্রতি আহ্বানও জানিয়েছেন।

“সমুদ্রসৈকতের কিছু ছবিতে আমি দেখেছি ভাইরাসের বিপদ অগ্রাহ্য করে ডজনেরও বেশি পরিবার একই গোসলখানা ও বাথরুম ব্যবহার করছে,” এবিসি নিউজকে বলেছেন এলিয়ট।

নর্থ সাউথ ওয়েলস লেবার পার্টির ছায়া অর্থমন্ত্রী ওয়াল্ট সিকর্ড জরুরি ভিত্তিতে সব সমুদ্রসৈকত বন্ধের বিষয়টি বিবেচনা করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

শুক্রবার অস্ট্রেলীয় প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন নাগরিকদের জন্য ‘সামাজিক দূরত্ব’ বিষয়ক নতুন নির্দেশনাও জারি করেছেন। এতে রেস্তোরাঁ ও বারগুলোতে প্রতি চার বর্গমিটার জায়গা অনুযায়ী একজনের বেশি উপস্থিতির ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য