কুড়িগ্রাম ছেড়েছেন সদ্য প্রত্যাহার হওয়া জেলা প্রশাসক (ডিসি) সুলতানা পারভীন। বুধবার (১৮ মার্চ) দুপুরে তিনি কুড়িগ্রাম ছেড়ে চলে গেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জিলুফার ইয়াসমিন।

এই কর্মকর্তা বলেন, ‘বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সব কর্মকর্তা-কর্মচারী ডিসির সরকারি বাসভবনে উপস্থিত হয়ে সদ্য প্রত্যাহার হওয়া সুলতানা পারভীনকে বিদায় জানান।’

একই দাবি করেছেন, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সংস্থাপন শাখার প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান। তবে জেলা প্রশাসকের ব্যবহৃত আসবাবপত্র ও অন্যান্য জিনিসপত্র এখনও নিয়ে যাওয়া হয়নি বলে জানিয়েছে ডাকবাংলোর (সিএ) গোপনীয় সহকারী রতন কুমার সাহা।

এর আগে ১৬ মার্চ মধ্যরাতে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক হাফিজুর রহমানকে ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেন সুলতানা পারভীন।

দুপুরে সরজমিনে কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গিয়ে ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমানের দেখা পাওয়া যায়নি। তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন ধরেননি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সংস্থাপন শাখার প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান বলেন, ‘ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান, রংপুর বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে এক সভায় যোগ দেওয়ার জন্য গিয়েছেন। ১৯ মার্চ (বৃহস্পতিবার) নতুন জেলা প্রশাসক রেজাউল করিম নিজ কার্যালয়ে যোগ দেবেন।’

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ৩ মার্চ সুলতানা পারভীন দায়িত্ব গ্রহণ করেন এবং গত ১৬ মার্চ ২০২০ তাকে প্রত্যাহার করা হয়। এর আগে ১৩ মার্চ বাংলা ট্রিবিউনের কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি আরিফুল ইসলামের বাড়িতে মধ্যরাতে হানা দিয়ে তাকে তুলে ডিসি কার্যালয়ে নিয়ে নির্যাতন শেষে মাদক দিয়ে মোবাইল কোর্ট বসিয়ে এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। ১৫ মার্চ আরিফ মুক্তি পান। এই ঘটনায় কুড়িগ্রামের ডিসি সুলতানা পারভীন, আরডিসি নাজিম উদ্দিন ও দুই সহকারী কমিশনারকে প্রত্যাহার করা হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য