আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার শুরু হয়েছে। আমেরিকা এবং তালেবানের মধ্যে সম্প্রতি সই হওয়া চুক্তির আওতায় এসব সেনা প্রত্যাহার করা হচ্ছে।

আফগানিস্তানে মোতায়েন মার্কিন সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র কর্নেল সনি লেগেট গতকাল (সোমবার) এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। আফগানিস্তানে দুই প্রতিদ্বন্দ্বী রাজনৈতিক নেতা আশরাফ গণি এবং আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ দুজনই প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেয়ার দিন মার্কিন প্রশাসন সেনা প্রত্যাহার শুরু করলো। আশরাফ গণি ও আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেয়ার ঘটনায় আফগানিস্তানের রাজনৈতিক গোলযোগ আরো বেশি বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা জোরদার হচ্ছে।

কর্নেল সনি লেগেট জানান, বর্তমানে আফগানিস্তানে যে সেনা মোতায়েন রয়েছে তা কমিয়ে ৮৬০০-তে নামিয়ে আনা হবে।

মার্কিন সামরিক বাহিনী এক বিবৃতিতে বলেছে, “আফগানিস্তানের রাজনৈতিক সঙ্কট আছে কি নেই, কাবুলে প্রেসিডেন্ট একজন নাকি দু জন সেগুলো নিয়ে আমেরিকা সময় নষ্ট করবে না বরং ১৩৫ দিনের মধ্যে সেনা সংখ্যা কমিয়ে ৮৬০০-তে নামিয়ে আনা হবে।”

সম্প্রতি, কাতারের রাজধানী দোহায় তালেবানের মধ্যে কথিত শান্তি চুক্তি সই হয়। চুক্তি অনুসারে আমেরিকা আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার শুরু করছে এবং ধারণা করা হচ্ছে যে, এর মাধ্যমে ১৯ বছরের যুদ্ধের অবসান হবে। তবে আশরাফ গণি এবং আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহর প্রেসিডেন্ট হিসেবে আলাদাভাবে শপথ নেয়া এবং তালেবানের সাম্প্রতিক হামলা বেড়ে যাওয়ার ঘটনা ত্রিমুখী রাজনৈতিক সংকটের বার্তা দিচ্ছে বলে অনেক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য